Sunday , June 20 2021
Breaking News
Home / আরও... / ‘পবিত্র মাহে রমজান’

‘পবিত্র মাহে রমজান’

মো:আ:মজিদ  : পবিত্র মাহে রমজান মাসে আল্লাহ পাক তাঁর সকল রহমতের দরজা খুলে রেখেছেন মানুষকে রক্ষা করার জন্য, মানুষ কে তার পাপাচার থেকে উদ্ধার করে শুদ্ধভাবে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন ভাবে কবরে নেয়ার জন্য। অথচ আমরা এই মনুষ্য জাতি কোন দিকে ভ্রুক্ষেপ না করে মিথ্যা কে সত্য বলে চালিয়ে দিতে কালো টাকাকে সাদা করতে, অন্যায়কে ন্যায় বলে চালিয়ে দিতে সদা সর্বদা ব্যস্ত রয়েছি। সেদিন হঠাৎ করে আমার এক বন্ধু প্রশ্ন করে বসলো, বন্ধু তুমি তো একটু আধটু লেখা লেখি করো আর আমি তো ওসবের ধারে কাছে ও নেই। আচ্ছা তুমি কি বলতে পারো ঐযে কালো টাকা সাদা করার কথা শোনা যায়। আসলে ওটা কি বলোতো। আমি তো জানি এক বস্তা আলুর মধ্যে একটি আলু পচা থাকলে সব আস্তে আস্তে পচে যায়। মৌলভী মোল্লাদের মুখে শুনেছি হারাম টাকা থাকলে নাকি সব হালাল টাকাও হারাম হয়ে যায়। কিন্তু কস্যিনকালেও যা শুনিনি তাই এখন শুনছি। তা তুমি এ ব্যাপারে কিছু বলতে পারবে। শুনে প্রথমে একটু মুচকি হেসে তারপর বললাম আচ্ছা হঠাৎ করে তোমার মাথায় এ ভূত চাপলো কেন? আসলে এসব ব্যাপার তো উপর লেবেলের। ওখানে আমরা মই লাগিয়ে ও উঠতে পারবো না। তাই ওসব নিয়ে আলোচনা না করায় ভাল।

আরে তুমি বলতে পারলে বলো না বললে না বলো কিন্তু অতোসব উপরনিচ দেখায় ও না।

বললাম রাগ করছো কেনো ভাই? আসলে–

আবার ঐ একই কথা আসলে জানো এই তোমাদের মতো যারা কলম নিয়ে ব্যবসা করো তারাও দুই নম্বর হয়ে গেছো। ভাল কথা লিখবে না শুধু তেল মারতে থাকবে। আরে ভাই লেখালেখি করতে গিয়ে ও তেল মারা। আমাদের দেশে প্রচুর পরিমাণে তেলের খনি দরকার। তা নাহলে কিছু দিন পরে তেল শুন্য হয়ে যাবে দেশটা।

বললাম আরে থামো বসো কথা শুনো। হাত ধরে পাশে বসিয়ে নিয়ে আস্তে আস্তে বলতে থাকলাম।

দেখো একটা কথা আছে না ” সর্বাঙ্গে ঘা ঔষধ লাগাই কোথা।” এখন আমাদের দেশে যেখানেই যাবে সেখানেই দেখবে অনিয়ম। আজ আধুনিক পৃথিবীতে আমাদের দেশ আগের চেয়ে অনেক উন্নত। উন্নতি হয়েছে মানুষের জীবন চলার মান। উন্নতি হয়েছে আধুনিকতার। উন্নতি হয়েছে অনেক কিছুই। কিন্তু সেই সাথে সাথে উন্নতি হয়েছে মানুষকে শোষণ করার হাতিয়ার। মানুষ কে ঠকানোর অভিনব কায়দা। কিন্তু উন্নতি হয়নি আমাদের দেশের মানুষের মানসিকতার, উন্নতি হয়নি সভ্যতার উন্নতি হয়নি পরিবেশের। দুঃখটা এখানেই এখন ও আমরা অসভ্যই রয়ে গেলাম।

সত্য কথা বলতে কি আমরা যখন ছোট ছিলাম স্কুলে পড়তাম। তখন একটিমাত্র শার্ট ছিল যেটা পরে স্কুলে গিয়েছি আবার সেটাই সব সময় ব্যবহার করেছি। দিত্বীয় কোন বিকল্প ছিল না। কারণ মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান বাবা প্রাইমারি স্কুলের প্রধান শিক্ষক ওর চেয়ে আর কত বেশি দিতে পারবেন। তবুও কোন আপত্তি বা আফসোস ছিল না। কিন্তু সবচেয়ে বড় কথা হলো আমরা কয় ভাই যখন স্কুলে গেছি তখন আশেপাশে দুই একজন ছাড়া কোন ছেলেমেয়ে কে স্কুলে যেতে দেখতে পাইনি। তবুও তখন এতো অসভ্য এতো বেহায়াপনা দেখতে পাওয়া যায়নি। কিন্তু আজ পাড়ার প্রতিটি পরিবারের ছেলে মেয়ে স্কুলে যেতে দেখা যায়। এক এক সময়ে এক এক ধরনের পোশাকের ঝলকানি। বেড়েছে অশ্লীলতা, বেড়েছে অসভ্যতা। মান সম্মান নিয়ে চলা বড়ই দুষ্কর। আমরা কোনদিন বড়দের মুখের উপর কথা বলা তো দূরের কথা সামনে যেতে ও ইতস্তত বোধ করতাম। আর এখন…… কিছু বলেছেন তো আর ইজ্জত থাকবে না। সবাই এখন সবার চেয়ে বেশি বুঝে।

সেজন্য বলছিলাম বেশি ফাল না পেড়ে চুপচাপ থাকো আর আল্লাহ আল্লাহ করো যে কদিন বাঁচো। শোনো না মাঝে মাঝে ফুটপাতে কয় “ছিইলা লবণ লাগাইয়া দিমু”। নতুন প্রজন্ম যারা দেশ গড়ার হাতিয়ার আজ তারাই নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু এজন্য দায়ী কে?

এখন তো আর সেই বর্গীর দল নেই, এখন তো সেই পশ্চিমা শাসকগোষ্ঠী নেই, তবে কারা এই মানুষ গুলোকে, এই সমাজকে, এই দেশকে, এই জাতিকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দিচ্ছে বলতে পারো? আজ মানুষ বিবেকহীন। বোবা হয়ে নীরব দর্শকের মতো চেয়ে চেয়ে দেখে। ফুটপাতে ঐ নিরীহ ছেলেটিকে পিটিয়ে মারছে, ঐ কচি মেয়েটাকে টানাটানি করে বেইজ্জত করে বলাৎকার করার চেষ্টা করছে, কিন্তু শত শত মানুষ নিরবে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখছে। মনে হচ্ছে শুটিং দেখছে। কিন্তু কেন? একজন মানুষের কাছে প্রশ্ন, আপনি কি বাঙালি নন, আপনি কি মুসলমান নন, আপনি কি এ দেশের একজন স্বচেতন নাগরিক নন? কে দেবে উত্তর? ঐ ছেলেটা ঐ মেয়েটা কি আপনার নয়, আপনার কোন আত্মীয়ের নয়, আপনার দেশের নয়, আপনার সমাজের নয়? নিরব। নিরব।। নিরব।।। তবে কিভাবে আপনি, আপনার সন্তান হবে দেশ গড়ার হাতিয়ার? যে মানুষ টি অন্যায়কে প্রশ্রয় দেয় নিরবে সহ্য করে সে কোনদিনই একজন মুসলমান হতে পারে না, একজন বাঙালি হতে পারে না, একজন মানুষ হতে পারে না।

তাই বলি বন্ধু আদার ব্যাপারী হয়ে জাহাজের খবর নিও না। —-“ছিইলা লবণ লাগাইয়া দিবে কিছুই করন থাকবো না”।

Check Also

মোল্লাহাটে উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত

মোল্লাহাটে উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত

মিয়া পারভেজ আলম (বাগেরহাট) প্রতিনিধি ঃ “শেখ হাসিনার বার্তা, নারী পুরুষ সমতা” ও “নারী পুরুষ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *