Tuesday , May 18 2021
Breaking News
Home / খবর / ফিফার রেফারি হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন মেহেরপুরের আব্বাস আলী

ফিফার রেফারি হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন মেহেরপুরের আব্বাস আলী

ফিফার রেফারি হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন মেহেরপুরের আব্বাস আলী

আমিরুল ইসলাম অল্ডাম, :  ফিফার রেফারি হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন মেহেরপুরের গাংনীর কৃতি সনত্মান মো: আব্বাস আলী। তিন বছর আগে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে)তালিকা ভুক্ত হওয়ার পর থেকে দীর্ঘদিনের সেই স্বপ্ন দ্রম্নত বাসত্মবায়ন হবে এমন প্রত্যাশা তার। মো: আব্বাস আলী গাংনী উত্তর পাড়ার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ইনত্মাজ আলীর ছেলে। সে অনার্স মাষ্টার্স শেষ করে গাংনীতে গড়ে তুলেছেন ফুটবল একাডেমি।
রেফারি মো: আব্বাস আলী জানান,ছোট থেকে পড়াশুনার ফাঁকে ফাঁকে এলাকার বড় ভাইদের সাথে গিয়ে খেলা করতাম। খোলোয়াড়দের পাশাপাশি রেফারির খেলা পরিচালনা দেখে স্বপ্ন ছিলো ফিফার রেফারি হবো। স্বপ্নকে বুকে ধারন করে ফুটবল ফেডারেশন রেফারির প্রশিক্ষণ গ্রহন করি।
তিনি বলেন,জাতীয় স্কুল ফুটবললীগ,জেলা প্রথম বিভাগ সহ দেশের বিভিন্ন জেলায় ফুটবল খেলায় রেফারির দায়িত্ব পালন করেছি। এখন ফুটবল ফেডারেশনের রেফারি হয়ে জীবনের স্বপ্নকে বাসত্মবায়ন করতে চাই। বাফুফে কর্তৃপড়্গ নিশ্চয়ই তার স্বপ্নের পথে পৌছাতে সার্বিক সহযোগিতা করবে বলে প্রত্যাশা করেন তিনি।
তিনি আরো বলেন,বর্তমান সমাজে মাদক ও মোবাইল ফোনে উঠতি বয়সের যুবকদের বিপদগামী করে তুলছে। যুবকদের খেলাধুলার মাধ্যমে মাদক থেকে ফিরিয়ে আনা সম্ভব।
তিনি বলেন, বাংলাদেশের জনপ্রিয় খেলা ফুটবল অনেকেই খেলে। কিন’ কেউই ঠিক নিয়ম জানেনা। সকলেই মনগড়া নিয়ম তৈরি করে খেলা পরিচালনা করেন। ফুটবল খেলায় ফিফার যে বিধি বিধান আছে সেগুলো সকলের মাঝে তুলে ধরে ফুটবলের উন্নতি করা ও ফুটবলের ঠিক নিয়ম এর মাধ্যমে জাতীয় পর্যায়ে খেলোয়াড় তৈরি করা।
স’ানীয় ফুটবল খেলোয়াড়রা জানান, মো: আব্বাস আলী শুধু বাফুফের সদস্যই না সে যেন ফিফার রেফারি হতে পারে এজন্য সরকার ও বাফুফের দৃষ্টি কামনা করেন। তারা বলেন,রেফারি মো: আব্বাস আলী জেলার গর্ব তাকে নিয়ে গর্ববোধ করি। সে বাফুফের রেফারি হয়ে দেশের তথা এ অঞ্চলের মুখ উজ্জ্বল করবে এটাই প্রত্যাশা তাদের।
সাবেক ফুটবলার যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স’ায়ী কমিটি সদস্য আব্দুস সালাম মূর্শেদী এমপি বলেন দেশে দড়্গ রেফারির প্রচুর চাহিদা রয়েছে একারনে করোনার মধ্যেও প্রশিড়্গণ কোর্স চলমান ছিলো। দেশের অনেকেই ফিফার রেফারি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছে। আমরা রেফারিদের বিদেশে পাঠাতে পারলে অভিজ্ঞতা বাড়বে। এ বিষয়ে ব্যবস’া নেয়া হচ্ছে।

গাংনীতে,মুক্তিযোদ্ধাদের-মানববন্ধন ও স্মারকলিপি পেশ

ফিফার রেফারি হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন মেহেরপুরের আব্বাস আলী

আমিরুল ইসলাম অল্ডাম : মেহেরপুরের গাংনীতে রাষ্ট্রীয় ভাতা প্রাপ্ত গেজেটভুক্ত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের যাচাই বাছাইয়ে বিতর্কিত কমিটি কর্তৃক নামঞ্জুরকৃত আবেদন তালিকার মিথ্যা , বানোয়াট, প্রহসন ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত প্রতিবেদন বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি দিয়েছে মুক্তিযোদ্ধারা। ভারতীয় নম্বরধারী বীর মুক্তিযোদ্ধ দের মাধ্যমে হতে হবে। জেলা প্রশাসক ও এমপি মহোদয়ের মনোনীত ২ জন বিতর্কিত সদস্য মুনত্মাজ আলী ও তাহাজ উদ্দীনকে বাদ দিয়ে নতুন সদস্য দিয়ে যাচাই বাছাই হতে হবে।ভারতীয় প্রশিড়্গণ ক্যাম্পের সার্টিফিকেট থাকা সত্বেও বাতিলের কারন জানতে চাওয়া হয়েছে।অনতিবিলম্বে এই বিতর্কিত কমিটি বাতিল করে নতুন কমিটি দিয়ে যাচাই বাছাই করতে হবে। অন্যথায় বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে এবং প্রয়োজনে আইনানুগ ব্যবস’া গ্রহণ করা হবে। মুক্তিযোদ্ধাদেও পড়্গ থেকে যাচাই বাছাই প্রতিবেদনটি ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান ও তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছেন।
স্মারক লিপিতে উলেস্নখ করা হয়েছে যে, গাংনীতে গেজেটভুক্ত ১১২ জন বীর মুক্তিযোদ্ধাদের যাচাই বাছাই যুদ্ধকালীন কমান্ডার দিয়ে করানো হয়নি।
রোববার সকাল ১১ টায় গাংনী শহীদ মিনার চত্বরে মানববন্ধন শেষে উপজেলা নিবার্হী অফিসারের কাছে স্মারকলিপি জমা দেন তারা। এসময় সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শামসুল আলম সোনা,মোজাম্মেল হক,গোলামমোসত্মফা,আজগর আলী, দেলোয়ার হোসেন,আব্দুস সামাদ, মজিবুল হক, ইয়াছিন আলী,মুক্তিযোদ্ধা সনত্মান কমান্ড সাবদার আলী,মহির হাসান হিটলা ও সেকেন্দার আলী সহ বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তার পরিবারের সদস্যরা উপসি’ত ছিলেন।

 

Check Also

সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে আটকে রেখে

সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে আটকে রেখে মানসিক ও শারীরিক নির্যাতনের প্রতিবাদ’’ সারাদেশে বিক্ষোভ

দৈনিক প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলাম। ছবি: ফোকাস বাংলা সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে আটকে রেখে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *