Sunday , May 16 2021
Home / খবর / খুলনায় লাইসেন্স ছাড়াই চলছে বেসরকারি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের রমরমা ব্যবসা

খুলনায় লাইসেন্স ছাড়াই চলছে বেসরকারি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের রমরমা ব্যবসা

 

বি এম রাকিব হাসান, খুলনা:  কোন ধরনের লাইসেন্স ছাড়াই খুলনা মহানগরীতে চলছে অধিকাংশ বেসরকারি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের রমরমা ব্যবসা। যাদের লাইসেন্স আছে তার মধ্যে এক তৃতীয়াংশের লাইসেন্স নবায়ন করা নেই। আর যাদের লাইসেন্স নবায়ন করা আছে তাদের মধ্যে আবার ক্লিনিকের লাইসেন্স নিয়ে বেআইনিভাবে হাসপাতাল চালাচ্ছেন অনেকে। এদিকে হাইকোর্টের নির্দেশনা মেনে বেশির ভাগ ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে মূল্য তালিকা টাঙ্গানো হলেও তাতে পরীড়্গা নিরীড়্গার ফি এর বদলে স’ান পেয়েছে বেড ভাড়া, ডাক্তার ফি, ওটি চার্জ ইত্যাদি। তবে কর্তৃপড়্গ বলছে চলতি মাসেই অবৈধ ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের বিরম্নদ্ধে যৌথ অভিযান পরিচালনা করা হবে।
বিভাগীয় স্বাস’্য অধিদপ্তরের সর্বশেষ হালনাগাদ তালিকা থেকে জানা যায়, নগরীতে লাইসেন্সকৃত বেসরকারি ক্লিনিক হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের সংখ্যা ১৮০টি। তবে সিনিয়র একাধিক চিকিৎসকের সাথে আলাপ করে এবং নগরীর বিভিন্ন স’ান ঘুরে ২৫০ এর বেশি ক্লিনিক, হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের খোঁজ পাওয়া গেছে। কর্তৃপড়্গের হিসেব অনুযায়ী ১৮০টি প্রতিষ্ঠান লাইসেন্স নিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করলেও এর মধ্যে ৪২টি প্রতিষ্ঠান লাইসেন্স নবায়ন করেনি। আবার কোন কোন প্রতিষ্ঠান লাইসেন্স নবায়ন করার জন্য আবেদন দেয়া পর্যনত্মই সীমাবদ্ধ। এদিকে দেশের সব বেসরকারি ক্লিনিক ও হাসপাতালে ডায়াগনস্টিক পরীড়্গার মূল্য টাঙ্গিয়ে রাখতে হাইকোটের্র নির্দেশ থাকলেও তা পালন করছে না বেশির ভাগ প্রতিষ্ঠান। আর অনেক প্রতিষ্ঠান মূল্য তালিকা টাঙ্গিয়ে রাখলেও তা পরিপূর্ণ নয়। পরীড়্গা নিরীড়্গার মূল্যের পরিবর্তে বেড ভাড়া, কনস্যালটেন্ট ফি, ওটি চার্জ ইত্যাদি স’ান পেয়েছে সেখানে।
খুলনা বিপিএমপিএ সূত্রে জানা যায়, হঠাৎ করেই স্বাস’্য অধিদপ্তর বেসরকারি হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক স্টোরের নবায়ন ফি ৫০ গুণ বৃদ্ধি করেছে। আগে যে প্রতিষ্ঠান ৩০ হাজার টাকায় নবায়ন করতো এখন তাতে আড়াই লাখ টাকা প্রয়োজন হবে। এছাড়া বিভিন্ন অমূলক দাবি চাপিয়ে দেয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। এতে বেসরকারি প্রতিষ্ঠান আর সেবা দিতে পারবে না। তাই এসব বিষয়ে সুরহা না হওয়া পর্যনত্ম অনেক প্রতিষ্ঠান নবায়ন করতে পারছে না।
খুলনা বিভাগীয় স্বাস’্য পরিচালক বলেছেন, অন্যায় ও অবৈধভাবে কেউ হাসপাতাল ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার পরিচালনা করলে তার বিরম্নদ্ধে আইনানুগ ব্যবস’া গ্রহণ করা হবে।

 

Check Also

মসজিদে ঈদের জামাত

মোঃ আব্দুল মজিদ   : আজ শুক্রবার ঈদ-উল-ফিতর। সকল মানুষ আজ মসজিদে ঈদের জামাত আদায় করেছেন। মহল্লায় …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *