Tuesday , May 11 2021
Breaking News
Home / বাংলাদেশ / অপরাধ / তনু সাধারণ ঘরের মেয়ে বলেই কি বিচার হবে না?

তনু সাধারণ ঘরের মেয়ে বলেই কি বিচার হবে না?

 tonu jpg
কুমিল্লা প্রতিনিধি

সরকার ধর্ষকদের পৃষ্ঠপোষক কিনা-এমন প্রশ্ন তুলেছেন গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডা. ইমরান এইচ সরকার। তিনি বলেছেন, তনু হত্যার ঘটনায় সরকার যে নীরবতা পালন করছে তাতে এমন প্রশ্ন তোলাই স্বাভাবিক।

গতকাল রোববার কুমিল্লা শহরের পূবালী চত্বরে গণজাগরণ মঞ্চের লংমার্চ শেষে আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এমন প্রশ্ন তোলেন।

ডা. ইমরান এইচ সরকার বলেন, ১৯৯৫ সালে দিনাজপুরের ইয়াসমিন হত্যার বিচারের দাবিতে প্রধানমন্ত্রী রাজপথে নেমেছিলেন।

কিন্তু তনু হত্যার ব্যাপারে তিনি নীরব কেন?

তিনি বলেন, যদি এমপি, মন্ত্রী ও রাজনৈতিক নেতার আত্মীয় ধর্ষিত হত তাহলে ক্যান্টনমেন্টের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সরিয়ে দেয়া হত। তনু সাধারণ ঘরের মেয়ে বলেই কি বিচার হবে না?

মঞ্চের মুখপাত্র আরো বলেন, সোহাগী জাহান তনু ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় যেই জড়িত থাকুক না কেন তাকে গ্রেফতার করে দ্রুত বিচারের মাধ্যমে ফাঁসি দিতে হবে। তা নাহলে আমরা রাজপথ ছাড়ব না।

তিনি বলেন, সেনাবাহিনী দেশে-বিদেশে সুনাম অর্জন করেছে। তনু ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় সেনাবাহিনীর কেউ জড়িত থাকলে তাকে বিচারের আওতায় এনে সেই ভাবমূর্তি অক্ষুণ্ন রাখা উচিত। ‘তা না হলে যত প্রভাবই খাটানো হোক না কেন, আমরা তনু হত্যার বিচার সম্পন্ন করতে বাধ্য করব’ তনু হত্যার বিচার না হওয়া পর্যন্ত কুমিল্লাবাসীর সাথে গণজাগরণ মঞ্চ ও সারাদেশের মানুষ থাকবে বলেও উল্লেখ করেন ইমরান এইচ সরকার।

সমাবেশে সস্নোগানকন্যা ও ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি লাকী আকতার বলেন, ক্যান্টনমেন্টের মতো সুরক্ষিত জায়গায় তনু ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনা দেশবাসীর বিবেককে নাড়া দিয়েছে। তিনি বলেন, আমরা সেনাবাহিনী বুঝি না। জনগণের টাকায় যারা সর্বোচ্চ সুবিধা ভোগ করে তাদের মধ্যে যদি ধর্ষক ও খুনি থাকে তাদের বিচার করতে হবে।

লাকী আকতার বলেন, দেশের মানুষের সবার দাবি, তনু ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় জড়িতদের বিচারের আওতায় এনে দ্রুত ফাঁসি দিতে হবে।

গত বছরের পহেলা বৈশাখে (ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে) যৌন নির্যাতনের মতো তনুর হত্যার ঘটনা যাতে ধামাচাপায় না পড়ে সেজন্য আমরা রাজপথ ছাড়ব না বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

এছাড়া সরকার ধর্ষকের ফাঁসির শাস্তি কমিয়ে যে যাবজ্জীবন করেছে তা বাতিল করে ধর্ষকের শাস্তি পুনরায় ফাঁসি করারও দাবি তোলা হয় সমাবেশ থেকে। সমাবেশে গণজাগরণ মঞ্চের সংগঠক ভাস্কর রাশা, জীবনান্দ জয়ন্ত, ইমরান হাবীব রুমন এবং মঞ্চের কুমিল্লা শাখার সংগঠকরা বক্তব্য দেন।

এর আগে দুপুর থেকে শহরের পূবালী চত্বরকে সস্নোগানে সস্নোগানে মুখরিত করেন মঞ্চের কর্মীরা। বিকেল সাড়ে ৪টায় কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ ঢাকা থেকে যাওয়া লংমার্চ শেষে সমাবেশে যোগ দেন।

Check Also

মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে খুলনা প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন

মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে খুলনা প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন

খবর বিজ্ঞপ্তিঃ বি এম রাকিব হাসান, খুলনা ব্যুরো” মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে সাতক্ষীরা ডিবি পুলিশ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *