Tuesday , May 18 2021
Breaking News
Home / বাংলাদেশ / অপরাধ / গোলাগুলি,বোমাবাজি আর সংঘর্ষে উত্ত্যপ্ত হয়ে উঠেছে গোটা কুষ্টিয়া

গোলাগুলি,বোমাবাজি আর সংঘর্ষে উত্ত্যপ্ত হয়ে উঠেছে গোটা কুষ্টিয়া

উত্ত্যপ্ত হয়ে উঠেছে গোটা কুষ্টিয়া

 কুষ্টিয়া থেকে শরিফ মাহমুদ : আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে ঘিরে উত্ত্যপ্ত হয়ে উঠেছে গোটা কুষ্টিয়া। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে প্রতিদিনই জেলার নির্বাচনী এলাকার কোথাও না কোথাও ঘটছে সংঘর্ষসহ গুলি ও বোমাবাজির মতো ঘটনা। এ ঘটনায় আহত হয়েছে অনেকেই।

সূত্রে জানা যায়,মিরপুর উপজেলায় মোট ভোট ২ লাখ ১ হাজার ৯শ’৬৮ এখানে মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও এর অন্যতম শরিক দল জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের নেতাকর্মীরা। প্রায় প্রতিদিন এ উপজেলার কোন না কোন ইউনিয়নে দু’দলের সমর্থকদের মধ্যে ঘটছে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ। ফলে রাজনৈতিক অঙ্গন এখন উত্ত্যপ্ত হয়ে উঠেছে।

তবে বিএনপি, জামায়াতসহ অন্যান্য সংগঠনের প্রার্থীরা দ্বন্দ্ব সংঘর্ষ এড়িয়ে তাদের নির্বাচনী প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছে। তবে অনেকেই ধারণা করছে শতবাধার মধ্যেও এবারের নির্বাচনে ১১টি ইউনিয়নের মধ্যে ৫টি ইউনিয়নে বিএনপি প্রার্থীর নির্বাচিত হবার সম্ভাবনা রয়েছে। যদি অবাধ সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন করা সম্ভব হয় তা হলে সব কয়টি ইউনিয়নেই বিএনপির জয়লাভের আশা করছে নেতাকর্মীরা। নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে ক্ষমতাশীন আওয়ামীলীগ-জাসদ দু’দলের মধ্যে উত্তেজনার পারদ ততই বাড়ছে এই উপজেলায়।

এখানে জাসদ আওয়ামী লীগের সংঘর্ষ হয়েছে। এতে আহত হয়েছেন কমপক্ষে ৭ জন। এছাড়া অভিযোগ পাল্টা অভিযোগ করছেন নেতারা। এর ফলে প্রশাসনের ভুমিকা নিয়েও সাধারণ ভোটাররা নানা প্রশ্ন তুলছে। একদিকে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু (জাসদ) অপরদিকে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব উল আলম হানিফ। স্থানীয় প্রশাসন কোন দিকে যাবে এ নিয়েও নানা জল্পনা কল্পনা চলছে ভোটারদের মধ্যে। দু’দলের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ফলে সাধারণ ভোটাররা আতংকের মধ্যে পড়েছে। ভোটাররা নির্বিঘ্নে ভোট কেন্দ্রে যেতে পারবে কিনা তা নিয়েও শংশয় দেখা দিয়েছে। ইতিমধ্যে আওয়ামী লীগ নেতারা ঘোষনা দিয়েছে মিরপুরের ১১টি ইউনিয়নের মধ্যে ১০ টি ইউনিয়নেই তারা নির্বাচিত হবে। আওয়ামীলীগ নেতাদের এই বক্তব্যের ফলে হতাশ ভোটাররা। ভোটাররা এখন ভাবছেন তা হলে কি আওয়ামী লীগ ভোট কেন্দ্র দখল করে কেটে ছিড়ে এবং ঘোষনা দিয়ে নিয়ে নিবে? আগামী ২২ মার্চ প্রথম ধাপে এ উপজেলার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

তফসিল ঘোষণার পর থেকেই মিরপুর উপজেলার ১১ ইউনিয়নেই উত্তেজনা বিরাজ করছে। উপজেলার ৯টি ইউনিয়ন প্রার্থী দিয়েছে জাসদ। দুটি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আছে। এদিকে প্রতিদিনই প্রচারনায় নেমে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ছে আওয়ামী লীগ ও জাসদের নেতা-কর্মীরা। হামলায় আহত ও ভাংচুরের মত ঘটনা ঘটছে। জাসদের নেতারা অভিযোগ করছেন, আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা বিভিন্ন ইউনিয়নে জনসভা করে উস্কানীমূলক বক্তব্য দেওয়ায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। বহিরাগত সন্ত্রাসীরা মহড়া দিচ্ছে। জাসদের নেতা-কর্মীদের ভয়ভীতি দেখাচ্ছে তারা।

গত সপ্তাহে তালবাড়িয়া ইউনিয়নে জাসদের অফিসে গিয়ে অস্ত্র বের করে নেতা-কর্মীদের ভয়ভীতি দেখায় সন্ত্রাসীরা। এ ঘটনার পর কুষ্টিয়া-ভেড়ামারা সড়ক অবরোধ করে রাখে জাসদের স্থানীয় নেতারা। এ ঘটনার জন্য জাসদ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী আরিফুল ইসলাম আরিফ দায়ী করেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আব্দুল হান্নানকে। আরিফ বলেন, আওয়ামী লীগ প্রার্থী আব্দুল হান্নানের পক্ষ নিয়ে বহিরাগত সন্ত্রাসীরা নেতা-কর্মীদের ভয়ভীতি দেখাচ্ছে।

তবে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল হান্নান এসব দোষ A¯^xKvi করে উল্টো দাবি করেন, জাসদের সন্ত্রাসীরাই তার অফিসে হামলার চেষ্টা করে।

এদিকে উপজেলার ছাতিয়ান ইউনিয়নে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে জাসদ ও আওয়ামীলীগ প্রার্থী সমর্থকদের মধ্যে গণসংযোগকে কেন্দ্র করে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া বোমা বিষ্ফোরণসহ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। মঙ্গলবার দুপুরের দিকে জাসদ প্রার্থী আব্দুল জলিলের সমর্থক টিক্কা মিয়ার বাড়ীতে আওয়ামী লীগ প্রার্থী জসিমের সমর্থকরা হামলা চালায়। এ ঘটনার জের ধরে দুপুর ১টার দিকে জাসদ প্রার্থী আব্দুল জলিলের সমর্থকরা হকষ্টিক, হাসুয়া, লাঠি নিয়ে ছাতিয়ান ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে সমর্থকদের বাড়ীতে পাল্টা হামলা করলে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় একটি বোমা বিষ্ফোরণ ঘটায় হামলাকারীরা।

পরে উভয় পক্ষের সংঘর্ষে আওয়ামীলীগ প্রার্থী সমর্থক চাঁদ ডাক্তার ( ৫৫) লাল্টু (৪৫) মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হয় এবং জাসদ প্রার্থী সমর্থক কামরুল (৪৫) ফরিদ (৪০) সহ ৭ জন আহত হয়। পরে আহতদের মিরপুর ¯^v¯’¨ কমপ্লেক্সে নিয়ে আসা হয়। বর্তমানে সেখানে তারা চিকিৎসাধীন রয়েছে। পরে খবর পেয়ে মিরপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছালে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। বর্তমানে ছাতিয়ান ইউনিয়নে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

এ ঘটনায় গত ১৭ মার্চ উভয় গ্রুপই মিরপুর থানায় পাল্টাপাল্টা মামলা দায়েরে করেছে। মামলা নং-১০।

এর আগে সোমবার রাতে আমবাড়ীয়া ইউনিয়নে জাসদ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী মশিউর রহমান মিলনের নির্বাচনী প্রচারণা ক্যাম্পে হামলা চালায় আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল বারী টুটুলের সমর্থকরা। এ ঘটনায় ১০টি মটর সাইকেল ভাঙচুর করা হয়েছে। এ সময় বাধা দিতে গেলে পুলিশের ২ সদস্য ছাড়াও এক প্রতিবন্ধী আহত হয়েছে।

 

জাসদ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী মশিউর রহমান মিলন বলেন, আওয়ামীলীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল বারী টুটুলের প্রত্যক্ষ মদদে এ হামলা হয়েছে। আমার কর্মিরা মাঠে নামতে ভয় পাচ্ছে। টুটুলের লেলিয়ে দেয়া ক্যাডার বাহিনী ভোটারদের ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। এছাড়া জনপ্রতিনিধিরা আচরণ বিধি লঙ্ঘণ করে প্রচারনায় অংশ নিলেও রিটার্নিং অফিসার নিরব ভূমিকা পালন করছেন বলে এই প্রার্থীর অভিযোগ।

আমলা ইউনিয়নের চিত্রও একই রকম। সেখানে মুখোমুখি আ’লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী আনোয়ারুল মালিথা ও জামায়াতের প্রার্থী রফিকুল ইসলাম। দু’জনের বাড়ি একই গ্রামে।

জামায়াতের প্রার্থী রফিকুল ইসলামের সমর্থকরা বলছেন, তারা আ’লীগ প্রার্থির ভয়ে মাঠে নামতে ভয় পাচ্ছে এবং তাদেরকে বিভিন্ন ভাবে নির্বাচনী প্রচার প্রচারনায় বাঁধা প্রদান করা হচ্ছে।

নির্বাচনকে কেন্দ্র করে জামায়াতের চেয়ারম্যান প্রার্থী রফিকুল ইসলামের বাড়িঘর ও তার সমর্থকদের মটর সাইকেলও ভাংচুর করা হয়েছে বলে তারা দাবী করেছেন। তবে এমন কোন ঘটনা ঘটাননি বলে আ’লীগ প্রার্থি আনোয়ারুল মালিথার সমর্থকরা জানিয়েছেন।

জেলার ভেড়ামারায় নির্বাচন ৩১ মার্চ। এ উপজেলার চাঁদগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী আবুল হোসেন’র নৌকা প্রতীকের অফিসে অগ্নিসংযোগ করেছে দৃর্বৃত্তরা। অগ্নিসংযোগে শেখ হাসিনার ছবি সংবলিত নৌকা প্রতীকের পোষ্টার এবং অফিসটি পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এ সময় তারা পরপর দু’টি শক্তিশালী হাত বোমার বিস্ফোরন ঘটিয়ে এলাকায় চরম আতঙ্ক সৃষ্টি করে। বৃহস্পতিবার রাত আড়াইটার দিকে ভেড়ামারার চাঁদগ্রাম ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডে এ ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনার পরই সকালে স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ এবং প্রশাসনের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। পুড়িয়ে ফেলা নির্বাচনী অফিসের প্রধান আসাদ জানিয়েছেন, রাত আড়াইটার দিকে একদল দৃর্বৃত্ত নৌকার অফিসে হামলা চালায়। এসময় তারা দুটি শক্তিশালী বোমার বিস্ফোরন ঘটায়। পরে অফিসে অগ্নিসংযোগ করে বীরদর্পে এলাকা ত্যাগ করে। তিনি জানান, নির্বাচনী প্রতিপক্ষের সমর্থকরা অফিস প্রতিষ্ঠার সময় থেকেই হুমকি ধামকি দিয়ে আসছিল। আওয়ামীলীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী আবুল হোসেন জানিয়েছেন, সদ্য আওয়ামীলীগে যোগদানকারী গিয়াস উদ্দীন সোনা আওয়ামীলীগের মনোনয়ন চেয়ে ছিলেন। তিনি মনোনয়ন বঞ্চিত হয়ে জাসদ মনোনীত প্রার্থী আব্দুল হাফিজ তপনের সাথে একাত্বতা ঘোষনা করে মশাল প্রতীকের নির্বাচন করছে। সোনাই আমার প্রতি Clvwš^Z হয়ে তার লোকজন দিয়ে নিয়মিত ভাবে আমার কর্মী সমর্থকদের উপর হুমকি ধামকি দিয়ে আসছিল। এরই ধারাবাহিকতায় আমার নির্বাচনী অফিসে অগ্নিসংযোগ করে তারা পুড়িয়ে দিয়েছে। তিনি এ ঘটনার সুষ্টু প্রতিকার দাবী করে স্থানীয় রিটার্নিং অফিসার এবং ভেড়ামারা থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

এদিকে কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর উপজেলায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে ৩১ মার্চ। ইতিমধ্যে সেখানেও নির্বাচন নিয়ে স্ব স্ব প্রার্থীর নেতা কর্মী ও সমর্থকদের মধ্যে কয়েক দফা গোলাগোলি ও রক্তক্ষয়ি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে গেছে।

জানা যায়, দৌলতপুরে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী জোয়াদুর রহমান জজের বাড়িতে নৌকা প্রার্থীর লোকজন হামলা চালিয়েছে। এ সময় জোয়াদুর রহমান জজের লোকজন নৌকা প্রার্থীর লোকজনকে ধাওয়া দিলে তারা একটি মোটরসাইকেল ফেলে পালিয়ে যায়। এরই জের ধরে প্রতিপক্ষের লোকজন জোয়াদুর রহমান জজের আল্লারদর্গা বাজারে চালের গুদামের তালা ভেংগে বস্তা ভর্তি চাল লুট করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার মরিচা ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জোয়াদুর রহমান জজের বাড়িতে গত বৃহস্পাতিবার রাত ১২টার দিকে প্রতিপক্ষ আওয়ামীলীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী শাহ আলমগীরের কর্মী ও সমর্থকরা হামলা চালায়। এ সময় হামলাকারীরা জোয়াদুর রহমান জজের বাড়ির আঙিনায় তার নির্বাচনী ক্যাম্পের চেয়ার ভাংচুর ও পোষ্টার ছিড়ে ফেললে জোয়াদুর রহমান জজের লোকজন তাদের ধাওয়া  দেয়। ধাওয়া খেয়ে তারা পালানোর সময় নৌকা প্রার্থীর এক কর্মী মোটরসাইকেল ফেলে পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ মোটরসাইকেলটি উদ্ধার করে।

গুদামের চাল লুটের জের ধরে শুক্রবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে আল্লারদর্গা বাজারে জোয়াদুর রহমান জজের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে প্রতিপক্ষ আওয়ামীলীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী শাহ আলমগীরের লোকজন হামলা করে গুদামের তালা ভেংগে চাউল লুট করে। চাল লুটের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে লুটেরা গা ঢাকা দেয়। বাড়িতে হামলা ও গুদামের চাল লুটের বিষয়ে জোয়াদুর রহমান জজ জানান, ভোটে পরাজয় হবে ভেবে এখন তার প্রতিপক্ষ শাহ আলমের ক্যাডাররা বাড়িতে হামলা করেছে এবং তার চালের গুদামের তালা ভেংগে চাল লুট করেছে। তবে আওয়ামীলীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী শাহ আলমগীর প্রতিপক্ষ জজের অভিযোগ A¯^xKvi করে বলেন, নির্বাচনী প্রচারনার সময় তার এক কর্মীর মোটরসাইকেল জোর করে কেড়ে নিয়েছে জজের ক্যাডাররা। এছাড়াও জজের গুদামে তার কোন লোকজন হামলাও করেনি তালাও ভাঙ্গেনি। বরং তার লোকজনই গুদামের চাল অন্যত্র সরিয়ে নিচ্ছে। দুই প্রার্থীর পাল্টাপাল্টি অভিযোগের বিষয়ে দৌলতপুর থানার ওসি (তদন্ত) অসাদুজ্জামান চাকলাদার জানান, নির্বাচনী পেনিক সৃষ্টির জন্য কে বা কারা জজের চালের গুদামে তালা ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করে চেয়ার টেবিল ভাংচুর করেছে। চাল লুটের ঘটনা ঘটেনি।

কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক সৈয়দ বেলাল হোসেন বলেছেন, আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কোন প্রকার বিশৃংখলা ও আতঙ্ক সৃষ্টি মেনে নেয়া হবে না।

যেখানেই বিশৃংখলা সেখানেই প্রতিরোধ গড়ে তুলতে আইনশৃংখলা বাহিনীকে তথ্য দিয়ে আপনাদের সহযোগীতা করতে হবে। কেউ আইনের উর্ধে নয়, অপরাধ করলে শাস্তি তাকে পেতেই হবে। যে কোন মূল্যে শান্তিপূর্ন ভাবে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন সম্পন্ন করতে যা যা দরকারসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আজাদ জাহান জানান, কয়েকটি ইউনিয়নে বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ঘটেছে। তবে সার্বিক পরিস্থিতি ভাল আছে। সামনে যাতে এসব ঘটনা না ঘটে সেজন্য আইন শৃংখলা বাহিনী সজাগ রয়েছে।

কুষ্টিয়া জেলা জাসদ সভাপতি গোলাম মহসিন জানান, আওয়ামী লীগের নেতারা ইচ্ছাকৃত ভাবে জাসদ নেতা-কর্মীদের ওপর হামলা করছে। নির্বাচনী পরিবেশ নষ্ট করছে তারা। বহিরাগত সন্ত্রাসীরা প্রতিদিন মহড়া দিলেও প্রশাসন নিরব ভূমিকা পালন করছে। আওয়ামী লীগের যেসব নেতারা জনপ্রতিনিধি আছেন তারা সরকারি গাড়ি ব্যবহার করে প্রচারনা চালাচ্ছেন। আমরা এসব ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। স্থানীয় প্রশাসনও সঠিকভাবে কাজ করছে না বলে অভিযোগ করেন তিনি।

তবে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আজগর আলী বলেন, জাসদ অহেতুক মিথ্যা অভিযোগ করছে। নির্বাচনে জিততে পারবে না বলেই তারা বিভিন্ন ঘটনা ঘটিয়ে আওয়ামী লীগের ওপর দায় চাপাচ্ছে। তিনি অভিযোগ করে বলেন, জামায়াত শিবিরের লোকজন জাসদের সাথে আতাঁত করে বিভিন্ন অপকর্ম করছে। আমরা স্পষ্ট করে বলতে চাই নির্বাচন সুষ্ঠু ও অবাধ হবে। এ নিয়ে কোন বিতর্কের সুযোগ নেই।

Check Also

সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে আটকে রেখে

সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে আটকে রেখে মানসিক ও শারীরিক নির্যাতনের প্রতিবাদ’’ সারাদেশে বিক্ষোভ

দৈনিক প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলাম। ছবি: ফোকাস বাংলা সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে আটকে রেখে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *