Monday , December 6 2021
Home / আরও... / অযত্নে-অবহেলায় বেড়ে উঠছে হতদরিদ্র পরিবারের শিশুরা

অযত্নে-অবহেলায় বেড়ে উঠছে হতদরিদ্র পরিবারের শিশুরা

শিশুরা

মুহম্মদ মহসীন : অনেক ক্ষেত্রে সামাজিক বৈষম্য, স্থানীয় সমাজসেবা প্রতিষ্ঠানটির বিভিন্ন দায়িত্বহীনতা, সামাজিক সংস্থাগুলোর অবহেলা ও রাজনৈতিক দলগুলোর দলীয় চিন্তাধারা থেকে বেরিয়ে না আসাতে মেহেরপুর জেলার অসংখ্য শিশুকিশোর বেড়ে উঠছে অযত্নে। এবিষয়ে এক অনুসন্ধানীতে জানাগেছে এই সমস্ত শিশু-কিশোররা বেশীর ভাগউ পুষ্টিহীণতায় ভুগছে সেইসাথে অক্ষর জ্ঞান হীন এবং সুচিকিৎসা থেকে এদের অনেকই বঞ্চিত। অন্যদিকে অতি দরিদ্র পরিবারগুলো শিশু কিশোররা তাদের মৌলিক অধিকার হারাচ্ছে, ঝরে পড়ছে স্কুলের ক্লাস থেকে যেকারনে শিশু অপরাধের মত অনাকাংখিত ঘটনা ঘটছে সমাজ ব্যবস্থায়। বিষয়টি নিয়ে জানতে চাওয়া হলে ইউনিয়ন জনপ্রতিনিধিরা এই প্রতিবেদককে বলেন সময়ের স্বল্পতা, আর্থিক সংকট এবং পর্যাপ্ত সরকারী সুবিধা না থাকাতে প্রত্যন্ত অঞ্চলগুলোতে সহযোগিতার হাত বাড়ানো্‌ সম্ভব হয়ে ওঠে না। অনুসন্ধানীতে আরো জানাগেছে সদর উপজেলার তেরঘরিয়ার আশ্রায়ন প্রকল্পে শতাধিক পরিবারের, আমঝুপী ইউনিয়নের রঘুনাথপুর আশ্রায়ন প্রকল্পের শতাধিক পরিবারের এবং হরিজন সম্প্রদায়ের অর্ধশত পরিবারের কয়েকশত শিশু কিশোর বিভিন্ন সামাজিক অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এছাড়াও শুধুমাত্র মেহেরপুর শ্রমিক সংগঠনেই ৫ শতাধিক শিশু কিশোর শিশুশ্রমে সম্পৃক্ত হয়ে জীবনের অন্য মানে খুজছে। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় একটি কিশোর অধিকার নিয়ে মাঠ পর্যায়ে কাজ করেন এমন সংস্থা মানব উন্নয়ন কেন্দ্র (মউক) এর নির্বাহী পরিচালক আসাদুজ্জামান সেলিম তিনি তার পরিসংখ্যান তুলে ধরে বলেন মেহেরপুর সদর ও মুজিবনগর উপজেলার ৪টি গ্রাম থেকে আমরা যে তথ্য পেয়েছি তাতে হতদরিদ্র পরিবারের শিশু কিশোরের হার ৩১.২৫ শতাংশ। অন্যদিকে দৈনিকটি স্থানীয় শিশু বিশেষজ্ঞর কাছে শিশুদের বেড় ওঠার বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন শিশুরা সময় মত না খেতে পেলে ঐ সমস্ত শিশু পুষ্টিহীনতা ভুগবে।

Check Also

অবৈধ স্থাপনা অপসারণ

অবৈধ স্থাপনা অপসারণ করতে বলায় সরকারী কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে মামলা গাংনীতে সরকারী জায়গায় অবৈধভাবে নির্মিত স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান ।

আমিরুল ইসলাম অল্ডাম : ঃ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার কাথুলী ইউপির অন্তর্গত খাসমহল গ্রামের ৪ রাস্তার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *