Tuesday , December 7 2021
Breaking News
Home / মেহেরপুর / গাংনীতে জঙ্গলে জীর্ণ কুঁড়ে ঘরে পোকামাকড়ের সাথে ওদের সংসার

গাংনীতে জঙ্গলে জীর্ণ কুঁড়ে ঘরে পোকামাকড়ের সাথে ওদের সংসার

গাংনীতে জঙ্গলে জীর্ণ কুঁড়ে ঘরে পোকামাকড়ের সাথে ওদের সংসার

Kbdnews ঃ ভাঙ্গা বেড়ার ঘরে পলিথিনের ছাউনী দিয়ে অন্যের জমিতে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে রোদ বৃষ্টি মাথায় নিয়ে বসবাস করে আসছেন অসহায় সুশান্ত হালদার। মেঘলা রাতে বৃষ্টির প্রতিটি ফোটার শব্দ শুনে এবং পোকামাকড়ের সাথেই তাদের রাত কাটে।
ঘরের দেয়াল নেই। মাটি-বেড়ার ঘরে সাপ, ব্যাঙ আর কেঁচোর সঙ্গে নিত্য যুদ্ধ করতে হয় অসহায় সুশান্ত হালদারের পরিবারকে।সুশান্তর এ ঘরটি দেখলেই যেনো চোখে পানি চলে আসে।এমন পরিবেশে কোন মানুষ কি বসবাস করতে পারে? মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে পুণর্বাসনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা জমি ও ঘর উপহার দিলেও সুশান্তর কপালে জোটেনি সরকারি ঘর। জীবন যুদ্ধের সেই সৈনিক সুশান্ত হালদারের বসবাস মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার রাইপুর ইউনিয়নের হাড়িয়াদহ গ্রামে।
সুশান্তর বাবার বাড়ি মেহেরপুর শহরে হলেও,সেখানেও তার তেমন জমি জায়গা নেই। এ কারণে প্রায়ই ২০ বছর যাবত শ্বশুর বাড়ি হাড়িয়াদহ গ্রামে তার বসবাস।কিন্তু দুর্ভাগ্য তার শ্বশুরেরও কোন জায়গা-জমি নেই। শ্বশুর সুধীর হালদার মারা যাওয়ার পর শ্বাাশুড়ী এখন অন্যের জমির উপর বাস বাগানে বসবাস করে আসছেন। তার শাশুড়ী ভিক্ষা করে জীবন-যাপন করে আসছেন।

গাংনীতে জঙ্গলে জীর্ণ কুঁড়ে ঘরে পোকামাকড়ের সাথে ওদের সংসার

একসময় সুশান্ত মাছ শিকার করে জীবন-জীবিকা নির্বাহ করতে মাছ ধরতো।বর্তমানে এলাকায় নদী-নালা,খাল-বিল তেমন নেই বললেই চল্ ে।যদিও কয়েকটি ছোট খাল বিল নদী রয়েছে।ওই নদীতে শুকনো মৌসুমে পানি না থাকায় মাছ শিকারও তার তেমন হয়না।ফলে অন্যের কৃষি ক্ষেতে দিন মজুরির কাজ করে সংসার চালাতে হয় তাকে।কাজ কর্ম না হলে অনেকদিন না খেয়ে থাকতে হয়। ছেলে মেয়েদের দু’বেলা খাবার জোটাতে হিমশিম খেকে হয়। ভাল পোশাক দিতে পারিনা। পরিবারে রয়েছে ৪ জন সদস্য।
এই বেড়ার ঘরে কোন রকমে বসবাস করা সুশান্ত গাংনী উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কাছে প্রাণের আকুতি মাথা গোঁজার ঠাঁই চাই।কষ্ট করে বেড়া দিয়ে অন্যের বাঁশবাগানে থাকার ঠাঁই করলেও জমির মালিক সেখানেও থাকতে দেবেনা বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছে। এখন আমরা কি করবো, কোথায় যাবো।
সুশান্তর স্ত্রী পূর্ণিমা হালদার জানান , লোক মারফত জানতে পেরেছি, মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে পুনর্বাসনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর কন্যা মানবতার মা শেখ হাসিনা জমি ও ঘর উপহার দিচ্ছেন।ইউএনও স্যারের মাধ্যমে বহু মানুষ ইতিমধ্যে জমি ও ঘর পেয়েছে, তারা সেখানে বসবাস করছে, আপন ঠিকানা পেয়েছে। অনেকে জমি ও ঘর পেলেও সেখানে বসবাস করে না।ফলে পতিত অবস্থায় আছে।আর আমরা ঘরের অভাবে মানবেতর জীবন যাপন করছি।আমি অনেকের কাছে বলেছি। কিন্তু কেউ আমাদের দুঃখ কষ্ট বোঝেনি। কেউ আমাদের খোঁজ খবর নেয়না। আমরা অসহায় গৃহহীন মানুষ,তাই ইউএনও স্যারের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী মানবতার মা শেখ হাসিনার কাছে মাথা গোঁজার ঠাঁই চাই।তা না হলে খোলা আকাশের নীচে থাকা ছাড়া উপায় থাকবে না।

গাংনীতে জঙ্গলে জীর্ণ কুঁড়ে ঘরে পোকামাকড়ের সাথে ওদের সংসার

পূর্ণিমা আরো বলেন,কেউ যদি কয়েকটি ঢেউটিন দিতেন।তাহলে,ভাঙ্গা ঘরের উপর টিন দিয়ে কিছুটা হলেও বৃষ্টির পানি থেকে ছেলে মেয়েকে রক্ষা করতে পারতাম।

Check Also

মেহেরপুরে গলায় খাবার আটকে মায়ের কোলে শিশুর মৃত্যু

মেহেরপুরে গলায় খাবার আটকে মায়ের কোলে শিশুর মৃত্যু

আমিরুল ইসলাম অল্ডাম : ঃমেহেরপুরের গাংনী উপজেলার কাজীপুর ইউনিয়নের হাড়াভাঙ্গা গ্রামে গলায় খাবার আটকে আলিফ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *