Tuesday , April 20 2021
Breaking News
Home / অর্থনীতি / ৬ মাস বেতন বন্ধ, ৩০ কর্মকর্তাসহ ৮৯০ কর্মচারীর চাকরি হুমকির মুখে কুষ্টিয়া চিনিকলে ১৯ বছরে লোকসান ৪১৫ কোটি, চাষিদের ৩ কোটি ২৬ লাখ টাকা বকেয়া রেখেই বন্ধের সিদ্ধাত্ম

৬ মাস বেতন বন্ধ, ৩০ কর্মকর্তাসহ ৮৯০ কর্মচারীর চাকরি হুমকির মুখে কুষ্টিয়া চিনিকলে ১৯ বছরে লোকসান ৪১৫ কোটি, চাষিদের ৩ কোটি ২৬ লাখ টাকা বকেয়া রেখেই বন্ধের সিদ্ধাত্ম

 কুষ্টিয়া চিনিকলে

: জগতিতে অবস্থি’ত কুষ্টিয়া সুগার মিল-
কুষ্টিয়া থেকে শরিফ মাহমুদ :  কুষ্টিয়ায় কৃষি ভিত্তিক ভারী শিল্পের একমাত্র চিনিকলটি ক্রমাগত লোকসানের মুখে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চললেও লোকসানসহ নানা কারন দেখিয়ে অবশেষে মিলটি বন্ধের সিদ্ধাত্ম নিয়েছে কর্তৃপড়্গ। আখ চাষিদের ৩ কোটি ২৬ লাখ টাকা বকেয়া রেখেই এই হঠকারী সিদ্ধানত্ম নিয়েছে বাংলাদেশ খাদ্য ও চিনি শিল্প করপোরেশন। ফলে চাষিরা পড়েছে বিপাকে। পাশাপাশি ৩০ কর্মকর্তাসহ ৮৯০ জন কর্মচারীর চাকরিও এখন হুমকির মুখে। শ্রমিক-কর্মচারীরা বেতন-ভাতা পাচ্ছেন না ৫-৬ মাস।
বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, ভরা মৌসুমে আখ যোগান কম ও কারখানা ব্রেক ডাউনের কারণে চিনি উৎপাদনে লক্ষ্যমাত্রা অর্জন হচ্ছে না। ফলে প্রতি মৌসুমে কোটি কোটি টাকা লোকসানের বোঝা ও নানা সংকটে চিনিকলটি পরিণত হয়েছে অতি রম্নগ্ন শিল্পে। শুধুমাত্র ২০০১-০২ থেকে ২০১৯-২০ অর্থ বছর পর্যনত্ম গত ১৯ বছরে দেশের বৃহত্তম এই চিনিকলটিতে লোকসান হয়েছে ৪১৫ কোটি টাকা।
সরেজমিন খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ১৯৬১ সালে কুষ্টিয়া শহরে অদূরে জগতি নামক স’ানে ২২১.৪৬ একর জায়গার ওপর প্রতিষ্ঠিত কুষ্টিয়া চিনিকল। ১৯৬৫-৬৬ সালে পরীক্ষামূলকভাবে এ মিলে চিনি উৎপাদন শুরম্ন হয়। পরবর্তীতে ১৯৬৬-৬৭ সালে বাণিজ্যিকভাবে শুরম্ন হয় চিনি উৎপাদন।
মিলের অর্থ বিভাগের তথ্যমতে, প্রতি মৌসুমে চিনি উৎপাদন অব্যাহত থাকলেও এ মিলে লাভের চেয়ে লোকসানই হচ্ছে বেশি। তবে ১৯৯৪-৯৫ অর্থ বছরে ২ কোটি ৬১ লাখ ও ৯৫-৯৬ অর্থ বছরে ১ কোটি ২৬ লাখ টাকা মিলে লাভ হয়। এছাড়া বিগত ২০০১-২০০২ থেকে ২০১৯-২০২০ অর্থ বছর পর্যন- গত ১৯ বছরের হিসাব মতে লোকাসন হয়েছে ৪১৫ কোটি টাকা। মিলের ব্যবস’াপক (অর্থ) মো. খোরশেদ আলম খন্দকার গত ১৯ বছরে ক্রমাগত লোকসানের এ তথ্য নিশ্চিত করেন। চালুর প্রথমদিকে মিলটি লাভজনক হলেও পরবর্তীতে ব্যবস’াপনায় ত্রুটি, অনিয়ম-দুর্নীতি ও মাথাভারী প্রশাসনসহ নানা কারণে ক্রমাগত লোকসানের ঊর্ধ্বগতিতে মিলটি এখন অতি রম্নগ্ন প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়। ফলে লোকসানের বিশাল বোঝা মাথায় নিয়ে কৃষিভিত্তিক একমাত্র এ প্রতিষ্ঠানটি পড়েছে চরম হুমকিতে। এ দৈন্যদশায় মিলটি ঝিমিয়ে পড়ার পাশাপাশি ৩০ কর্মকর্তাসহ ৮৯০ জন কর্মচারীর চাকরি এখন হুমকিতে। শ্রমিক-কর্মচারীরা বেতন-ভাতা পাচ্ছেন না ৫-৬ মাস।
কলটির প্রতিদিনের চিনি উৎপাদন ক্ষমতা ১৫’শ মেট্রিক টন এবং বার্ষিক মাড়াই ক্ষমতা ১৫ হাজার মেট্রিক টন। মিল জোনের আওতায় আখ চাষ হচ্ছে ৪০ একর জমিতে। এছাড়া বৃহত্তর কুষ্টিয়ায় চাষি পর্যায়ে আখ চাষ হয়েছে ৭ হাজার ৯শ’ ৯৩ একর জমিতে। প্রতিমন ১৪০ টাকা দরে চাষিরা মিলে আখ সরবরাহ করেন। কিন’ বিক্রিত আখের দাম পরিশোধে দীর্ঘ সূত্রিতাসহ হয়রানি ও নানা জটিলতায় চাষি মিলে আখ সরবরাহে আগ্রহ হারাচ্ছে। প্রতিষ্ঠার পর এ পর্যনত্ম মিলটি আধুনিকীকরণ (বিএমআরই) করা হয়নি। ফলে বহু পুরাতন যন্ত্রাংশে সজ্জিত কারখানা প্রতি মৌসুমেই যান্ত্রিক ত্রুটিসহ ব্রেক ডাউনে চিনি উৎপাদন ব্যাহত হয়। এছাড়া প্রতি মৌসুমে মিলে উৎপাদিত হাজার হাজার টন চিনি থাকে অবিক্রীত। আমদানিকৃত চিনির বাজার মূল্য কম হওয়ায় ডিলার ও ভোক্তারা দেশি চিনির পরিবর্তে কেমিক্যাল মিশ্রিত রিফাইন চিনির দিকেই বেশী ঝুঁকছেন। ফলে নানা সংকটে সম্ভাবনাময় এ মিলটি ঘুর দাঁড়াতে পারছে না। মিলটির আধুনিকরণসহ মিলটিকে রক্ষায় সরকার ও সংশিস্নষ্ট মন্ত্রণালয়ের আশু হসত্মক্ষেপ কামনা করেন এলাকাবাসী।
মিলের আখ জোনের চাষি আব্দুস সাত্তার জানান, বিক্রিত আখের মূল্য পরিশোধে বিলম্বসহ নানা অনিয়মে লাভজনক এ প্রতিষ্ঠানটি চরমভাবে ক্ষতিগ্রস’ হচ্ছে। ফলে চাষিরা আখের পরিবর্তে অন্যান্য অর্থকরী ফসল চাষে ঝুঁকছে।
কুষ্টিয়া চিনিকলের ভারপ্রাপ্ত ব্যবস’াপনা পরিচালক মো. রাকিবুর রহমান খান লোকসানের সত্যতা স্বীকার করে জানান, মাড়াই মৌসুমে কাঁচামাল হিসাবে আখের সরবরাহ কম হওয়ায় মিলে চিনি উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন ব্যাহত হচ্ছে। তবে এসব সংকট কাটিয়ে মিলটিকে এগিয়ে নিতে সর্বাত্মক চেষ্টা করা হচ্ছে বলে তিনি জানান।
লোকসান ঠেকাতে কুষ্টিয়া সুগার মিলসহ ছয়টি সুগার মিল বন্ধের সিদ্ধানত্ম নিয়েছে বাংলাদেশ খাদ্য ও চিনি শিল্প করপোরেশন।
এদিকে কুষ্টিয়া চিনিকলের কাছে আঁখ চাষিদের ৩ কোটি ২৬ লাখ টাকা পাওনা পড়ে রয়েছে।
এসব পাওনা পরিশোধ না করেই চিনিকল বন্ধের সিদ্ধানেত্মর প্রতিবাদসহ পাঁচ দফা দাবিতে মানববন্ধন করেছেন কুষ্টিয়া চিনিকল শ্রমিক ও চাষিরা।
গত শনিবার দুপুরে কুষ্টিয়া চিনিকল সংলগ্ন বাইপাস সড়কে শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়ন, আখচাষি কল্যাণ সমিতি ও রেনউইক যজ্ঞেশ্বর শ্রমিক ইউনিয়নের যৌথ উদ্যোগে এ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়।
সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আখচাষী ফেডারেশনের যুগ্ম সম্পাদক মনিরুজ্জামান আতু, কুষ্টিয়া চিনিকল শ্রমিক-কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি ফারম্নক হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান ও রেনউইক যজ্ঞেশ্বর শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি রিপন হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক জাফর ইকবাল প্রমুখ।
সমাবেশে বক্তারা চলতি আখ মাড়াই মৌসুমে দেশের ১৫টি চিনিকলই একযোগে চালু, শ্রমিক-কর্মচারীদের সাত মাসের বেতন পরিশোধ, শ্রমিকদের গ্রাইচুটি পরিশোধসহ আঁখ চাষিদের বকেয়া পাওনা পরিশোধের দাবি জানিয়েছেন।

 

Check Also

করোনা হাসপাতাল

রাজধানীর মহাখালীতে চালু হলো দেশের সবচেয়ে বড় করোনা হাসপাতাল

ছবি: সংগৃহীত রাজধানীর মহাখালীতে চালু হলো দেশের সবচেয়ে বড় করোনা হাসপাতাল ‘ডিএনসিসি ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতাল’। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *