Sunday , October 25 2020
Breaking News
Home / বাংলাদেশ / নির্যাতন ও ধর্ষণবিরোধী সমাবেশ ধর্ষকদের প্রতি কঠোর হুঁশিয়ারি পুলিশের

নির্যাতন ও ধর্ষণবিরোধী সমাবেশ ধর্ষকদের প্রতি কঠোর হুঁশিয়ারি পুলিশের

স্টাফ রিপোর্টার :   পুলিশের উদ্যোগে রাজধানীসহ সারাদেশে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনবিরোধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার সারাদেশে ৬ হাজারেরও বেশি সমাবেশ হয়েছে। সেখানে পুলিশ কর্মকর্তারা ধর্ষণের বিরুদ্ধে কঠোর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছে।
জানা গেছে, বাংলাদেশে পুলিশের মোট ৬৪৭টি থানা রয়েছে।এই থানাগুলোতে পুলিশের মোট বিট ৬ হাজার ৯১২টি। পুলিশ সদর দফতর জানিয়েছে, সব বিটেই গতকাল শনিবার ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনবিরোধী সমাবেশ হয়েছে। গতকাল সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টার মধ্যে অনুষ্ঠিত

সমাবেশগুলোতে ধর্ষণের বিরুদ্ধে নানা প্ল্যাকার্ড ও ফেস্টুন নিয়ে সাধারণ মানুষ ও রাজনৈতিক নেতাকর্মীসহ অনেকেই অংশ নেন। এসব সমাবেশ থেকে ভুক্তভোগীদের নির্ভয়ে থানায় অভিযোগ করা আহ্বান জানানো হয়। সাধারণ মানুষ যেন ধর্ষকদের বিরুদ্ধে অবস্থান নেন এবং পুলিশকে ধর্ষণ প্রতিরোধে সহায়তা করেন, সে আহ্বানও জানানো হয়।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) রমনা জোনের উপ-কমিশনার সাজ্জাদুর রহমান জানান, আমরা সারাদেশে এই সমাবেশের আয়োজন করেছি একটি বার্তা দিতে, তা হলো ধর্ষণ করে রেহাই পাওয়া যাবে না। ধর্ষককে শাস্তির আওতায় আসতেই হবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এলাকায় ঢাকা শাহবাগ থানার সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন তিনি। সাজ্জাদুর রহমান আরো বলেন, ধর্ষণ এখন সবচেয়ে বেশি আলোচনায়। মানুষ ধর্ষণের বিরুদ্ধে সচেতন হচ্ছে। আমরা ধর্ষণের শিকার নারীদের পাশে আাছি। আমাদের কথা হলো কোনো নারী ধর্ষণের শিকার হবে না। আর কোনো মায়ের সন্তান যেন ধর্ষক না হয়। এই সমাবেশে অংশ নেয়া রেহানা পারভীন বলেন, ধর্ষণের শিকার যারা হন তারা ঠিকমতো পুলিশের সহযোগিতা পান না। সহযোগিতা পেলে ধর্ষণ কমবে।

তার মতে ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদ-ের বিধান করায় এখন ধর্ষকরা ভয় পাবে। ফলে ধর্ষণ কমে আসবে। তবে মানুষের মানসিকতায়ও পরিবর্তন আনতে হবে বলে মনে করেন তিনি। সমাজের পুরুষদের উদ্দেশে বলেন, আমরা তো আপনাদেরই মা-বোন-স্বজন্ আপনারা যদি আমাদের পাশে থাকেন তাহলে ধর্ষকরা আর অপরাধ করতে সাহস পাবে না।

সমাবেশে উপস্থিত খায়রুল আলম বলেন, আমাদের নারীদের প্রতি সহনশীল হতে হবে। তাদের শুভাকাঙ্খী হিসেবে পাশে থাকতে হবে।তাদের প্রতি আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি বদলাতে হবে। এ সমাজে তাদেরও সমান অধিকার এটা আমাদের মনে রাখতে হবে।

এদিকে, পুলিশের দাবি ধর্ষণ বাড়েনি বরং আগের থেকে সংবাদমাধ্যমে এর প্রচার বেশি হচ্ছে। ডিএমপির রমনা জোনের উপ-কমিশনার সাজ্জাদুর রহমান বলেন, সংবাদ মাধ্যমে কখনো ছেলেধরা, কখনো গণপিটুনির রিপোর্ট বেশি হয়। ধর্ষণের ক্ষেত্রেও তাই হয়েছে। আর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম বা সংবাদমাধ্যমে যখন আলোচনা হয় তখনই আমরা সক্রিয় হই এই অভিযোগও ঠিক নয়, আমরা সব সময় সক্রিয় আছি। ধর্ষণ মামলায় তাহলে শাস্তির হার এত কম (শতকরা ৩-৪ ভাগ) কেন? তদন্তে ত্রুটি আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমাদের তদন্তে ত্রুটি আছে বলে মনে হয় না। শাস্তি আদালতের বিষয় । কেন হয় না আদালতই বলতে পারবেন?

দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের থানা এলাকায়ও ধর্ষণবিরোধী সমাবেশ হয়েছে পুলিশের উদ্যোগে। ফরিদপুরের চরভদ্রাসনের চারটি ইউনিয়নে চারটি সমাবেশ হয়েছেঅ এই থানার ইন্সপেক্টর নাজনীন খানম বাংলাদেশের থানাগুলোতে যে কয়জন হাতে গোনা নারী ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আছেন তাদের একজন। তিনি বলেন, সমাবেশে আমরা সবাইকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছি যে তাদের ভয় নেই। আমরা পাশে আছি। ধর্ষককে আমরা ছাড়ব না।

তবে তিনি মনে করেন, ধর্ষণ সারাদেশে বাড়েনি। বেড়েছে কিছু এলাকায়। তিনি দাবি করেন, ধর্ষণের শিকার নারীদের থানা থেকে যথেষ্ট সহযোগিতা করা হয়। তাদের বাড়ি পর্যন্ত পৌঁছে দেয়া হয়। তিনি বলেন, ধর্ষণ মামলায় বিচার হয় না কেন তা যারা বিচার করেন তারাই বলতে পারবেন। আমরা বলতে পারব না। তিনি যোগ করেন, আমার থানা এলাকায় আমি নারী ওসি হওয়ার কারণে তাদের সাথে সরাসরি কথা বলি। তারা সবকিছু আমাকে খুলে বলেন, তাদেরও সুবিধা হয়, আমারও বুঝতে সুবিধা হয়। এ ধরনের ব্যবস্থা বাড়ানো যেতে পারে।

পুলিশ সদর দফতরের জনসংযোগ বিভাগের এআইজি মো. সোহেল রানা জানান, গতকাল শনিবার সকাল ১০টায় পুলিশের উদ্যোগে সারাদেশে ৬ হাজার ৯১২টি বিটে একযোগে নারী-শিশু ধর্ষণ ও নির্যাতনবিরোধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। এই অনুষ্ঠান সরাসরি সমপ্রচার করা হয়েছে বাংলাদেশ পুলিশের বিট পুলিশিং কেন্দ্রের ৬ হাজার ৯১২টি ফেসবুক পেজে। সারা?দে?শে লাখ লাখ নারী ও পুরুষ সশরী?রে উপ?স্থিত ছি?লেন এবং কোটি কোটি দর্শক ও সাধারণ মানুষ এই সমাবেশ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেখেছেন। নিঃসন্দেহে ধর্ষণসহ নারী ও শিশু নির্যাতনবিরোধী সচেতনতা সৃষ্টিতে এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। ইতোমধ্যেই প্রতিটি বিটের নিজস্ব একটি ফেসবুক পেজ খোলা হয়েছে।

নারী ধর্ষণ ও নির্যাতনবিরোধী সমাবেশে পুলিশসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, জনপ্রতিনিধি, নারী ও শিশু অধিকারকর্মী, স্থানীয় নারী ও স্কুল-কলেজের ছাত্রীরা উপ?স্থিত ছি?লেন। সমাবেশে তারা ধর্ষণসহ যেকোনোও প্রকার নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে সমাজের সব স্তরের মানুষের মধ্যে ব্যাপক গণজাগরণ সৃষ্টি করতে এবং নির্যাতনের শিকার নারী ও শিশুর পাশে থাকার আহ্বান জানান। নারী ও শিশু নির্যাতনসহ যেকোনো প্রকার অপরাধের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ পুলিশ সোচ্চার রয়েছে। সাধারণ মানুষের সহযোগিতা ও সমর্থনে এ ধরনের অপরাধ নির্মূলে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বদ্ধপরিকর বাংলাদেশ পুলিশ। দৈনিক জনতার প্রতিনিধিদের পাঠানো সংবাদ থেকে বিস্তারিত নিম্নে তুলে ধরা হলো।

ফুলবাড়ীয়া (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি মো. আ. জব্বার জানান, ধর্ষণসহ সকল নারী নির্যাতন প্রতিরোধে সারাদেশের ন্যায় ফুলবাড়ীয়াতেও নারী ধর্ষণ ও নির্যাতনবিরোধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার সকাল ১০টায় ফুলবাড়ীয়া থানা পৌরসভা বিট পুলিশের আয়োজনে থানার সামনে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। থানা অফিসার ইনচার্জ মোহা. আজিজুর রহমানের সভাপতিত্ব করেন।

বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধি জানায়, দিনাজপুরের বীরগঞ্জে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে জনসচেতনতা তৈরির লক্ষ্যে সমাবেশের আয়োজন করেছে বীরগঞ্জ থানা পুলিশ। দেশের ৬ হাজার ৯১২টি বিট পুলিশিং এলাকায় ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন বিরোধী এ সমাবেশের আয়োজন করা হয়েছে।

বীরগঞ্জ থানার এসআই আবুবক্কর সিদ্দিক জানান, সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বীরগঞ্জ উপজলোর পৌরসভাসহ সকল ইউনিয়নের সকল বিটে একযোগে একই সময়ে সকাল দশটায় ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনবিরোধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

দিনাজপুর প্রতিনিধি জানায়, ফুলবাড়ী পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় চত্বরে নারী ও শিশু নির্যাতন বিরোধ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার সকাল সাড়ে ১০ ফুলবাড়ী থানা অফিসার ইনচার্জ মো. ফখরুল ইসলামের সভাপতি্ব ফুলবাড়ী পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় চত্বরে নারী ও শিশু নির্যাতনবিরোধ সমাবেশ অনুষ্ঠিত।

ফরিদপুর প্রতিনিধি জানায়, ফরিদপুরের সালথায় বিট পুলিশিং কার্যক্রম এবং নারী নির্যাতন ও ধর্ষণ বিরোধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। মাদক, জঙ্গি, নারী নির্যাতন সংক্রান্ত তথ্য দিন ও প্রতিরোধ গড়ে তুলুন এই বিষয়টিকে সামনে রেখে গতকাল শনিবার বেলা ১১টায় সালথা থানার আয়োজনে ২নং যদুনন্দী ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে এই বিট পুলিশিং কার্যক্রম ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি জানায়, দেশব্যাপী ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের প্রতিবাদে ঠাকুরগাঁওয়ে বিট পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার সকালে জেলার ৫৩টি ইউনিয়ন পরিষদে পুলিশের আয়োজনে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি জানায়, মুজিববর্ষের অঙ্গিকার পুলিশ হবে জনতার এই সেস্নাগানের মধ্যদিয়ে সিরাজগঞ্জে নারী ধর্ষণ ও নির্যাতনবিরোধী বিট পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। জেলা পুলিশের আয়োজনে গতকাল শনিবার সকাল ১০টায় শহীদ জেলা পুলিশ লাইন্সে আলাউদ্দিন কনষ্টেবল ড্রিলসেড পুলিশ মিলনায়তনে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।

শেরপুর প্রতিনিধি জানায়, নারীর প্রতি সহিংসতা নিরসনে আপনার পুলিশ আপনার পাশে’-এই সস্নোগানকে সামনে রেখে শেরপুরের ঝিনাইগাতী থানা পুলিশের আয়োজনে বিট পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার সকাল ১০ টায় ঝিনাইগাতী সদর, মালিঝিকান্দা, হাতীবান্দা, কাংশা, ধানশাইল, নলকুড়া ও গৌরীপুর ইউনিয়নে একযোগে এ সমাবেশের আয়োজন করা হয়। সমাবেশে সাধারণ নারীর পাশাপাশি পুরুষরাও স্বতস্ফূর্ত অংশগ্রহণ করেন।

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি জানায়, ময়মনসিংহে নারী ধর্ষণ ও নির্যাতনবিরোধী বিট পুলিশিং সমাবেশ গতকাল শনিবার সকালে নগরীর কৃষ্ণচুড়া চত্বরে অনুষ্ঠিত হয়েছে। ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ এ সমাবেশের আয়োজন করে। সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহম্মেদ এমপি।

পাবনা প্রতিনিধি জানায়, নারী ধর্ষণ ও নির্যাতন বন্ধ করি, নারী সমৃদ্ধ দেশ গড়ি এই সেস্নস্নাগানে পাবনাতে বিট পুলিশিং ইউনিটের উদ্যোগে র‌্যালি ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার সকালে পুলিশ লাইনস থেকে র‌্যালি বের হয়ে আশপাশের সড়ক ঘুরে পুলিশ লাইনস মাঠে এসে সমাবেশে মিলিত হয়।

রাজশাহী প্রতিনিধি জানায়, রাজশাহী নগরীর বোয়ালিয়া থানার সাহেব বাজার জিরো পয়েন্ট বড় মসজিদের সামনে নারী ধর্ষণ ও নির্যাতনবিরোধী বিট পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। গতকাল শনিবার সকাল ১০টায় ওই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন আরএমপি পুলিশ কমিশনার মো. আবু কালাম সিদ্দিক, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মো. সুজায়েত ইসলাম, উপ-পুলিশ কমিশনার (বোয়ালিয়া) মোঃ সাজিদ হোসেন, উপ-পুলিশ কমিশনার (গোয়েন্দা শাখা) আবু আহাম্মদ আল মামুনসহ সহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

চাটমোহর প্রতিনিধি জানায়, পাবনার চাটমোহর থানায় এখন কেবল মামলাই নয়, সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করতেও কোনো টাকা লাগে না সেবা প্রত্যাশীদের। পুলিশ এখন অনেক ভালো হয়ে গেছে। নারী নির্যাতনসহ যে কোনো অপরাধের বিরুদ্ধে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। গতকাল শনিবার নারী ধর্ষণ ও নির্যাতনবিরোধী বিট পুলিশিং সমাবেশে দেয়া স্বাগত বক্তব্যে এমন দাবি করেছেন এ থানার ওসি আমিনুল ইসলাম।

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি জানায়, ‘নারীর প্রতি সহিংসতা নিরসনে, আপনার পুলিশ আপনার পাশে’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে সাতক্ষীরা জেলা পুলিশের উদ্যোগে নারী নির্যাতন প্রতিরোধকল্পে র‌্যালি ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় সাতক্ষীরা সদর থানা হতে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়।

 

Check Also

জলচ্ছ্বাসের আশঙ্কা

সারাদেশে বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত জনজীবন জলচ্ছ্বাসের আশঙ্কা

স্টাফ রিপোর্টার :    সারাদেশেই নামছে বৃষ্টি। কোথাও হালকা থেকে মাঝারি, আবার কোথাও মাঝারি থেকে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *