Tuesday , December 1 2020
Breaking News
Home / খবর / খুলনা নগরীতে অবাদে ঢুকছে পরিবহণ, যানজটে নাভিশ্বাস

খুলনা নগরীতে অবাদে ঢুকছে পরিবহণ, যানজটে নাভিশ্বাস

 পরিবহণ, যানজটে নাভিশ্বাস

বি এম রাকিব হাসান, খুলনা:নাগরিক স্বাছন্দ্য নিয়ে বিসত্মর অভিযোগ নগরবাসীর। তালিকায় যানজট সমস্যা শীর্ষে। ঢাকা ও চট্টগ্রাম শহরে দিনের বেলায় কোন পরিবহণ বাস ঢুকতে পারে না। কিন’ খুলনায় ট্রাফিক পুলিশের সাথে বিশেষ সখ্যতায় দিন-রাত অবাদে শহরের মধ্যে বাস প্রবেশ করছে। সেই সাথে শিববাড়ি মোড় ও রয়েল হোটেল মোড়ে ঘন্টার পর ঘন্টা রাসত্মা আটকে দাঁড়িয়ে থাকে বাসগুলো।
সরেজমিনে দেখা গেছে, বর্তমানে নগরীর কেডিএ এভিনিউতে ড্রেন ও সড়ক উন্নয়ন কাজ চলছে। ফলে একপাশের সড়কে চলাচল বন্ধ। অপরপাশে ওয়ানওয়ে রোডে দু’পাশ থেকেই আসা রিক্সাভ্যান, অটো রিক্সা, মটরসাইকেল, মিনি ট্রাক, প্রাইভেটকার চলাচল করে। সেই অবস’ায় পরিবহনের বড় বাসগুলো প্রবেশ করলে মাঝেপথে আটকে যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। বেশির ভাগ সময় যাত্রী তোলা কিংবা নামানোর কাজ হচ্ছে মূল রাসত্মায়। মাঝেমধ্যে আবার ওই রাসত্মা দখল করে যানবাহন দাঁড় করিয়ে রাখা হচ্ছে। বিশেষ করে শিববাড়ি, ময়লাপোতা, সাতরাসত্মার মোড় ও রয়েল হোটেল এলাকায় তীব্র যানজট তৈরি হচ্ছে। সকাল থেকে দুপুর পর্যনত্ম ও সন্ধ্যার পর থেকে এসব স’ানে যানজটে নাভিশ্বাস উঠছে নগরবাসীর।
জানা যায়, কিছুদিন আগেও খুলনা নগরীতে দিনের বেলায় পরিহনের বাস প্রবেশের অনুমতি ছিল না। সকাল ৮টার পর শহরে কোন চেয়ার কোচ ঢুকতো না। কিন’ বর্তমানে সারাদিন অবাদে ফাল্‌গুনি, রোহান, টুঙ্গিপাড়া, দিদার এন্টারপ্রাইজ, সাউদিয়া পরিবহনের গাড়ি ঢুকছে। পাশাপাশি হানিফ এন্টারপ্রাইজ, সোহাগ, ঈগল ও গ্রীন লাইন কোম্পানীর শতাধিক বাস শহরের মধ্যে চলাচল করছে। রয়েলের মোড়ে প্রতিটি কাউন্টারের সামনে সারাড়্গণ রাসত্মা আটকে বাসগুলো দাঁড়িয়ে থাকে। এদিকে বিভিন্ন স’ানে এসব বাস কাউন্টারকে ঘিরে উঠতি বয়সী যুবকদের রমরমা আড্ডা দিতে দেখা যায়। ফলে আইন-শৃঙ্খলা পরিসি’তিরও অবনতি হচ্ছে।
দিদার পরিবহনের সহকারি ব্যবস’াপক খন্দকার ইলিয়াছ হোসেন বলেন, ‘সাতরাসত্মার মোড়ে সন্ধ্যার পর সড়কে এলোপাথাড়ি মটরসাইকেল রাখার কারণে প্রচন্ড জ্যাম হয়। আমাদের পরিবহনের গাড়ি বের করতেও কষ্ট হয়। সিস্টেম ছিল একটা বাস আসবে যাত্রী নিয়ে চলে যাবে। কেউ কাউন্টারের সামনে একাধিক গাড়ি রাখতে পারবে না। কিন’ কেউ এসব মানে না।’
পরিবহন ব্যবসায়ী শাহাবুদ্দিন মোলস্না বাবু বলেন, খুলনার যানজট ঢাকার মতো অবস’া হয়ে গেছে। চেয়ারকোচগুলো কখনোই সকাল ৮টার পর শহরে ঢুকতো না। এখন প্রশাসনের সাথে সখ্যতার কারণে কিনা জানি না, দিনরাত ২৪ ঘন্টা শহরের মধ্যে চেয়ার কোচগুলো ঢুকছে। এতে যানজট ও দুর্ঘটনা বাড়ছে।
জানা যায়, গত সপ্তাহে মেট্রোপলিটন ট্রাফিক পুলিশের উপসি’তিতে রয়েলের মোড়ে সাউদিয়া পরিবহন কাউন্টারে কাউন্টার ব্যবস’াপকদের এক বৈঠকে নির্দিস্ট সময়ে একটি করে গাড়ি কাউন্টারে আনা ও যাত্রী নিয়ে তা’ ছেড়ে যাওয়ার সিদ্ধানত্ম হয়। অন্যথায় সকল কাউন্টার সোনাডাঙ্গা বাস টার্মিনালে সরিয়ে নেওয়ার কথা বলা হয়। কিন’ ওই সিদ্ধানত্ম মানছে না পরিবহনগুলো।
এ বিষয়ে সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক জানান, শহরের মধ্যে বাস ঢুকলেই যানজট তৈরি হবে। এটা নিয়ন্ত্রনের দায়িত্ব ট্রাফিকের। তারাই সিদ্ধানত্ম নেবে শহরে বাস ঢুকবে নাকি ঢুকবে না। আর মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-কমিশনার (ট্রাফিক) রিয়াজ উদ্দিন জানান, আমরা বাস মালিক সমিতির সাথে কথা বলেছি। সোনাডাঙ্গা বাস টার্মিনালের ভেতরের অবস’া ভালো না। সেখানে দূরপালস্নার বাসগুলো রাখা যায় না। আর সোনাডাঙ্গা বাস টার্মিনালের সামনে সড়কে রাখলে সেখানে প্রচন্ড যানজট হবে। তাই শহরের মধ্যে ছড়িয়ে ছিটিয়ে বাসগুলো রাখা হয়।

Check Also

দরিদ্র উন্নয়ন সংস্থার সার্জিক্যাল মার্কস বিতরণ

কুষ্টিয়ায় বাংলাদেশ দরিদ্র উন্নয়ন সংস্থার সার্জিক্যাল মার্কস বিতরণ

ছবি: শরিফ মাহমুদ কুষ্টিয়া থেকে শরিফ মাহমুদ :  স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলি, নিজে ও পরিবার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *