Tuesday , August 4 2020
Breaking News
Home / খবর / গোটা বিশ্ব যখন বিপর্যয়ের মুখোমুখি “ করোনায় কলম সৈনিকদের অবদান

গোটা বিশ্ব যখন বিপর্যয়ের মুখোমুখি “ করোনায় কলম সৈনিকদের অবদান

করোনায় কলম সৈনিকদের

ইমরান হুসাইন

গোটা বিশ্ব যখন প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের তা-বে ছিন্নভিন্ন সে কারণে চরম বিপর্যয়ের মুখোমুখি লাখো কোটি মানুষ। করোনাভাইরাসের এই দ্রুত সংক্রমণ হুমকির মধ্যে ফেলে দিয়েছে সাধারণ জনজীবন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর এমন মানবিক বিপর্যয় কখনো দেখেনি মানুষ। মানুষের কোনো কাজ নেই, আয় রোজগার নেই, খাদ্য নেই। নেই কোনো নিরাপত্তা। কিন্তু এর মধ্যে সবাই যখন এই ভাইরাসের প্রভাবে নিরাপদ স্থান বাড়িতে অবস্থান করছে তার বিপরীতে বাইরে অবস্থান করছে ডাক্তার, পুলিশের সাংবাদিকগণ বা গণমাধ্যমকর্মীরা। দায়িত্ব ও মানবিকতার কথা বিবেচনা করে নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সর্বত্র ছুটে চলেন এই সংবাদকর্মীরা। করোনা ভাইরাসের প্রভাবে আপনি যখন ঘরে তখন দেশের কোথায় কি ঘটছে, বর্তমান করোনার পরিস্থিতি কি তা আপনাকে জানিয়ে দিচ্ছে এই সাংবাদিকগণ। কিন্তু তাদের অবস্থা কেমন। এ খবর কেউ রাখে না উল্টো নানা রকম সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় এই সাংবাদিকদের যেখানে জীবনের ঝুঁকি থাকে সবসময়।
করোনায় কলম সৈনিকদের
করোনার এই মহামারীতেও সংবাদ সংগ্রহের জন্য নানা প্রতিবন্ধকতার ভিতরেও অবিরাম ধেয়ে চলে সাংবাদিকগণ। যার প্রতিদানে ইতোমধ্যে আমরা একজন সৎ ও সাহসী সাংবাদিককে হারিয়েছি। করোনায় দেশে প্রথম মৃত্যুবরণকারী সাংবাদিক হুমায়ূন কবির খোকন। যিনি গত ২৮ এপ্রিল করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। এবং করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন সময়ের আলো পত্রিকার আরেক সাংবাদিক। এছাড়া দেশে ৩ জুন এর সর্বশেষ তথ্য অনুয়াযী বর্তমানে করোনায় আক্রান্ত সাংবাদিককর্মী সংখ্যা ২৪৪ জন এবং করোনায় আক্রান্ত হয়ে তিনজন সংবাদকর্মী মৃত্যুবরণ করেছেন। এবং করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন আরো তিন জন। সাথে সাথে করোনায় আক্রান্তের ফলে সংবাদকর্মীদের পরিবারের সদস্যসদের প্রতিটি মুহূর্ত কাটে দুশ্চিন্তা আর উৎকণ্ঠার ভিতরে। এই সময়টাতে যাদের জীবনের কোনো নিরাপত্তা নেই অন্যদিকে সব সময় থাকতে হয় হুমকির মুখে।
করোনায় কলম সৈনিকদের
দেশে করোনাভাইরাসের প্রভাবে গণমাধ্যমে হেনেছে বড় ধরনের আঘাত। করোনার কারণে দেশে মানুষজন আতংকিত হবার জন্য প্রিন্ট পত্রিকাগুলোতে পাঠক কমার কারণে কাগজের বিপণন খুবই কম। সাথে সাথে পত্রিকাগুলোর গুনতে হচ্ছে লোকশানের হিসাব। তেমনি টিভি চ্যানেলগুলোরও একই সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। বর্তমান পরিস্থিতে দেশে নেই কোনো বিজ্ঞাপন দাতা। অন্যদিকে পুরনো বিজ্ঞাপনের অর্থ তারা আদায় করতে পারছে না। ফলে সম্মুখীন হতে হচ্ছে নানা প্রতিবন্ধকতার। ফলে দেশের এই সংকটপূর্ণ অবস্থাতেও শত শত সংবাদকর্মী তাদের চাকরি হারাচ্ছে এবং অনেক সাংবাদিক তাদের বেতন নিয়ে আশঙ্কায় আছেন। ফলে পরিবার পরিজন নিয়ে বেশ খারাপ অবস্থাতে সময় পার করছেন সংবাদকর্মীগণ। কিন্তু তারপরও দেখা যাচ্ছে দেশের এই সংকট মোকাবিলায় সাংবাদিকগণ এগিয়ে এসেছে সাধারণ মানুষের পাশে।
করোনায় কলম সৈনিকদের
(১) ১০ এপ্রিল, বরগুনায় নিজের বেতনের টাকায় করোনার প্রভাবে কর্মহীন বেদে সম্প্রদায় ও বিশেষ শ্রেণির (হিজড়া) মানুষের মধ্যে দুপুরের খাবার বিতরণ করেছেন সাংবাদিক সুমন সিকদার। শুধু তাই নয় বরগুনার বিভিন্ন চেক পোস্টে দায়িত্বরত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের মধ্যেও দুপুরের খাবার বিতরণ করেন তিনি।

(২) ৩ মে, মাগুরা শালিখার নওয়াব আলী। 

তিনি ঘুরে ঘুরে জানেন অনেক কর্মহীন মানুষ না খেয়ে আছেন কিংবা খাদ্য সংকটে আছেন সাথে সাথেই তিনি চাল, ডাল, তেলসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যে সেই অসহায় মানুষদের সাহায্য করেছেন।

(৩) ২১ এপ্রিল মেহেরপুরের সাংবাদিক কামরুজ্জামান খান ১০০ হতদরিদ্র পরিবারে নিজস্ব অর্থায়নে উপহার সামগ্রী বিতরণ করেন।

(৪) হজের টাকায় দরিদ্রদের সহায়তা করেছেন টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী উপজেলার সাংবাদিক আনছার আলী। তিনি এ বছর হজে যেতে চেয়েছিলেন কিন্তু করোনায় বিশ্বের বিরূপ অবস্থা হবার কারণে হজের টাকায় এলাকায় কর্মহীন ও গরিব অসহায় মানুষদের সহায়তা করেছেন।

(৫) ২ মে সাভারের বাড্ডা ভাটপাড়ার অসহায় পরিবারসহ ও আশপাশের এলাকাতে শতাধিক পরিবারকে ইফতার বিতরণ করেন। পবিত্র রমজানে এলাকার গরিব ও দুস্থ মানুষের মধ্যে সাংবাদিক মিঠুন এই ইফতার বিতরণ করেন।

(৬) নাটরের সিংড়ায় শতাধিক পরিবারে খাদ্য সহায়তা দিয়েছেন সাংবাদিক রানা।

৭) রাজবাড়ীতে সাংবাদিক কাজী তানভীর এলাকার অসহায়, গরিব, খেটে খাওয়া মানুষ ভ্যান চালক, রিকশাচালকসহ প্রত্যন্ত অঞ্চলে সকলের মাঝে খাদ্য সহায়তা প্রদান করেন এবং এলাকার মানুষের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য হ্যান্ডসেনিটাইজার ও মাস্ক বিতরণ করেন।
করোনায় কলম সৈনিকদের
সারাদেশে এমন অনেক মানবিক সাংবাদিক আছেন যারা নিজ অর্থায়নে সমাজের অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়াচ্ছেন। যাদের নাম থেকে যাচ্ছে আড়ালে। কিন্তু সেই মানবিক সংবাদকর্মীরা কি অবস্থায় আছেন আমরা কখনও জনাইতে চাই না। কখনও তাদের বুঝতে চাই না। কখনও একটাবার ভাবিনা যে এই সংবাদপত্র, এই গণমাধ্যম এই সংবাদকর্মীরা যদি না থাকতো তাহলে সারাদেশে ঘটা ঘটনা আমরা কিভাবে পেতাম। সব কিছু আমাদের অগোচরে থেকে যেতো। এত কষ্টের পরও এই সাংবাদিকদের নেই সঠিক মূল্যায়ন। সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে সম্মুখীন হতে হচ্ছে নানা সমস্যার, পর্যাপ্ত পরিমান সুরক্ষা না থাকায় প্রতিনিয়তই আক্রান্ত হচ্ছে গণমাধ্যম কর্মীরা। অন্যদিকে অবাধে ছাঁটাই হচ্ছে সংবাদকর্মীগণ এবং বেতনহীনতাই ও ভুগতে হচ্ছে অনেকের। বিশ্বব্যাপী সাংবাদিকদের অধিকার আদায় না হওয়া এবং তাদের চাকরির নিরাপত্তা না থাকায় দিন দিন কঠিন হয়ে যাচ্ছে এই সাংবাদিকতা পেশা। নেই তাদের অর্থনৈতিক নিরাপত্তা, নেই তাদের কলমের স্বাধীনতা।
পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও আনসার
বিশ্বব্যাপী মহামারী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত তিন মাসে ৩১ দেশের মোট ১২৭ সাংবাদিকের মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার জেনেভা-ভিত্তিক এনজিও প্রেস এম্বলেম ক্যাম্পেইন (পিইসি) এই তথ্য তুলে ধরেছে। খবর আনাদোলু এজেন্সির এনজিওটি পরিসংখ্যান অনুসারে, ১ মার্চ থেকে ৩১ মে পর্যন্ত অন্তত ১২৭ সাংবাদিকের মৃত্যু হয়েছে করোনাভাইরাসে। এদের মধ্যে এক-তৃতীয়াংশ দায়িত্বরত অবস্থায় ছিলেন। শুধু মে মাসেই মৃত্যু হয়েছে ৭২ জনের। অঞ্চল হিসেবে সবচেয়ে বেশি সাংবাদিকের মৃত্যু হয়েছে লাতিন আমেরিকায়। এখানে মারা গেছেন অন্তত ৬২ জন। অন্য অঞ্চলে মধ্যে ইউরোপে ২৩, এশিয়ায় ১৭, উত্তর আমেরিকায় ১৩ এবং আফ্রিকায় ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। লাতিন আমেরিকার মধ্যে সবচেয়ে বেশি সাংবাদিকের মৃত্যু হয়েছে পেরুতে। এরপর রয়েছে ব্রাজিল ও মেঙ্েিকা। এই দুটি দেশে ১৩ জন করে মারা গেছেন। ইকুয়েডরে মৃত্যু হয়েছে ১২ জনের।
করোনায় কলম সৈনিকদের
যুক্তরাষ্ট্রে মৃত সাংবাদিকের সংখ্যা ১২ জন। রাশিয়া ও পাকিস্তানে মৃত্যু হয়েছে ৮ জন করে। যুক্তরাজ্যে ৫, বাংলাদেশে ৪ এবং ৩ জন করে মারা গেছেন বলিভিয়া, ক্যামেরুন, ডমিনিকান রিপাবলিক, ফ্রান্স, ভারত, ইতালি ও স্পেন। দুজন করে মারা গেছেন আলজেরিয়া, কলম্বিয়া, মিসর, সুইডেন এবং একজন করে মৃত্যু হয়েছে অস্ট্রিয়া, বেলজিয়াম, কানাডা, ইরান, জাপান, মরক্কো, নিকারাগুয়া, নাইজেরিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, টোগো ও জিম্বাবুয়ে।
জনপ্রতিনিধি
প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনা কনফারেন্সে বলেন, সাংবাদিকগণ দেশের সৈনিক। আর তাই দেশের এই গণমাধ্যম সৈনিকদের অধিকার নিশ্চিত করুন। তাদের নিরাপত্তার নিশ্চিত করুন। দেশে পুলিশ, সেনাবাহিনী, ডাক্তার, নার্সদের মতো তারাও এই করোনায় নিজেদের জীবনের মায়া না করে দেশ ও জাতির সকল খবরাখবর সকলের কাছে পৌঁছে দিতে অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। দেশ ও জনগণের জন্য ছুটে চলেছে অবিরাম। আর তাই তাদের জীবনের নিরাপত্তার জন্য তাদের সুরক্ষার জন্য তাদের পরিবারের সুরক্ষার জন্য তাদের দিকে নজর দিন তাহলে এই অবহেলিত সংবাদকর্মীদের আর কোনো সমস্যা থাকবে না। স্বাভাবিক জীবনযাপনে তাদের আর নানাবিধ সমস্যায় ভুগতে হবে না।

 

Check Also

গাংনীতে প্রেমিকার সাথে

গাংনীতে প্রেমিকার সাথে অভিমানে সেনা সদস্য’র বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা

আমিরুল ইসলাম অল্ডাম : মেহেরপুরের গাংনীতে প্রেমিকার সাখে অভিমানে এক সেনা সদস্য বিষপানে আত্মহত্যার অপচেষ্টা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *