Tuesday , October 20 2020
Breaking News
Home / খবর / এখনো পানিবন্দী বাস্তহারাবাসী: নজর নেই কারও

এখনো পানিবন্দী বাস্তহারাবাসী: নজর নেই কারও

বাস্তহারাবাসী
নগরীর খালিশপুর বাস্তহারা কলোনী

 

বি এম রাকিব হাসান :    বুলবুলের প্রভাবে খুলনায় বৃষ্টি হয়েছে দুইদিন পূর্বে। জলাবদ্ধতা তৈরি হয়েছে বহু এলাকায়। অথচ এখনো পানিবন্দী হয়ে আছে নগরীর খালিশপুর বাস্তহারা কলোনীর প্রায় ১০ হাজার মানুষ। গত রবিবার থেকে ওই এলাকায় হয়েছে জলাবদ্ধতা। পানি নেমেছে মাত্র ৩ ইঞ্চি। সম্পূর্ণ পানি নামতে আরও সময় লাগবে বলে আশঙ্কা করছেন স’ানীয়রা। বৃষ্টি হলেই এমন জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তির দাবি জানিয়েছেন কলোনীর বাসিন্দারা।
বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে এখানকার বসবাসকারী মানুষের জীবন। রাস্তা-ঘাট, ঘর-বাড়ি পানিতে তলিয়ে রয়েছে। ঘরের ভিতরে পানিতে থৈ থৈ করছে। বেশ কয়েকটি রাস্তায় এখনও হাটু সমান পানি রয়েছে। শুধু মানুষই নয়, এখানকার গবাদী পশু-পাখিও চরম দুর্ভোগে পড়েছে। গত কয়েক দিন ধরে অবিরাম বৃষ্টির ফলে এ দুর্দশার সৃষ্টি হয়েছে। অপর দিকে অসংখ্য খানাখন্দের কারণে মুজগুন্নী মহাসড়কের বেহাল দশা। বিশেষ করে মুজগুন্নী পাকের সামনে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। বয়রা মোড় পর্যন্ত রয়েছে অসংখ্য গর্ত। ফলে যানবাহন ও পথচারীদের চলাচলে দুর্ভোগে পড়ছে।
সরেজমিনে দেখা যায়, বাইপাস সড়ক থেকে বাস্তহারা কলোনীতে প্রবেশের প্রধান সড়কটিতে হাটু সমান পানি। এখানে থাকা পুকুর ও রাস্তা পানিতে সমান হয়ে গেছে। দেখলে বোঝার অবস’া নেয় যে এখানে রাস্তা রয়েছে। হাটু পানি পেরিয়ে কিছু দূর যেতেই সেমিপাকা ১নং সড়ক দিয়ে শুরু। এ সড়কটি সম্পূর্ণ পানিতে সয়লাব। শুধু এই সড়কই নয়, সবগুলো রাস্তার প্রায় একই অবস’া। দু-একটি স’ানে কিছুটা কম রয়েছে। ঘর-বাড়ির মধ্যে হাটু সমান পানি ঢুকে পড়েছে। ঘরের খাটের ওপর চুলা বসিয়ে রান্না করছে। মঙ্গলবার বাস্তহারা কলোনী ঘুরে এমনই দুর্দশার দৃশ্য চোখে পড়ে। এখানের একটি মাত্র ড্রেন যেটা বাইপাস লিংক রোড দিয়ে খালে গিয়ে মিলেছে। বাইপাস সড়ক পাশে অবৈধ জমি দখল করে রাখায় সেই ড্রেনটি ছোট ও সরু হয়ে গেছে। ফলে পানির নিষ্কাশনে বাধাপ্রাপ্ত হচ্ছে।
স’ানীয়রা জানান, বাস্তুহারা এলাকাটি এমনিতে নিচু। তারপর বাস্তহারা খালটি ময়লা-আবর্জনায় ভরে গেছে। আবার খালটি ছাতির পার্কের পাশ দিয়ে বাইপাস সড়কে গিয়ে প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে। অবৈধ দখলদারদের কারণে খাল দিয়ে পানি নামতে পারছে না। মূলত খাল দিয়ে পানি নামতে না পারায় বৃষ্টির পানি রাস্তা-ঘাটসহ মানুষের ঘরবাড়িতে ঢুকে পড়েছে।
মঙ্গলবার বাস্তহারা এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, পুরো এলাকা এখনো ৬ থেকে ৮ ইঞ্চি পানির নিচে। রাস্তাঘাট-এমনকি মানুষের ঘরের মধ্যেও পানি ঢুকে গেছে। পানির মধ্যেই তাদের দিন কাটছে। দুই দিনে বৃষ্টি পানি নেমেছে মাত্র ৩-৪ ইঞ্চি। মুজগুন্নী মহাসড়কেও জমে রয়েছে পানি। যানবাহন চলাচলেও দুর্ভোগে পড়ছে চালক ও যাত্রীরা। পথচারীরাও চলাচলে সীমাহীন দুর্ভোগে পড়ছেন।
বাস্তহারা এলাকার ব্যবসায়ী মো: হাসান খান জানান জানান, বাস্তহারা মূল সড়কটি দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার করা হয় না। সড়কটি উঁচু করলে বাইরের পানি ভেতরে প্রবেশ করতে পারতো না। কিন’ করবো, করছি বলেও সড়কটি উঁচু করা হচ্ছে না। এভাবে দীর্ঘদিন থাকতে হচ্ছে। সামান্য বৃষ্টি হলেই ঘরে পানি প্রবেশ করে।
স’ানীয় বাসিন্দা ও ছাত্রলীগ নেতা খান জাকির জানান, ভারী বৃষ্টি হলেই এই এলাকায় জলাবদ্ধতা হয়। ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, রাস্তা-ঘাট, এমনকি শোবার ঘরেও পানি ঢুকে যায়। এর থেকে পরিত্রাণ পেতে বাস্তহারা খালটি পুনঃখনন করে সচল করা এবং রাস্তা উঁচু করা জরুরি। কিন’ বার বার বলা সত্ত্বেও এদিকে কারও নজর নেই।

 

Check Also

আলুর কৃত্রিম সংকট,

খুলনায় বাজারে আলুর কৃত্রিম সংকট, ক্ষুব্ধ ক্রেতারা

বি এম রাকিব হাসান, খুলনা:  প্রশাসনের পক্ষ থেকে মূল্য নির্ধারণের পর খুলনার সোনাডাঙ্গা পাইকারী কাঁচাবাজার, …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *