Saturday , December 5 2020
Breaking News
Home / খবর / কুষ্টিয়ায় মোবাইল চুরির অপবাদে গাছে বেঁধে শিশু নির্যাতন

কুষ্টিয়ায় মোবাইল চুরির অপবাদে গাছে বেঁধে শিশু নির্যাতন

KUShtia-PIC-1[1]

ক্যাপশন: গাছের সাথে বেঁধে শিশুকে বেধড়ক মারপিট করছে স্থানীয় প্রভাবশালীরা।

কুষ্টিয়া থেকে শরিফ মাহমুদ  : এবার কুষ্টিয়ার কুমারখালীর ছেঁউড়িয়ায় মোবাইল চুরির অপবাদে আম গাছের সাথে বেঁধে দুই শিশুকে বেধড়ক মারপিট করেছে স’ানীয় প্রভাবশালীরা। বুধবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে এই নির্মম এই নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় কুষ্টিয়া জুড়ে তোলপাড় চলছে। পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত দুই জনকে গ্রেফতার করেছে। বৃহস্পতিবার নির্যাতিত শিশু জুয়েলের বড় ভাই রবজেল খান বাদী হয়ে কুমারখালী থানায় নির্যাতনকারী তানজিল, শ্বাশুড়ী রোকেয়া খাতুন ও মীর আক্কাস ওরফে মিরম্নকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেছেন। মামলা নং-৯।
প্রত্যক্ষদর্শী ও দুই শিশুর পরিবার সুত্র জানায়, ৪-৫দিন আগে কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার ছেঁউড়িয়ার চরমন্ডলপাড়া এলাকার রূপালী নামে এক নারীর মোবাইল ফোন চুরি হয়। ওই ঘটনায় তারা একই এলাকার ৭ বছরের এতিম শিশু জুয়েল ও আসিফকে সন্দেহ করে। বুধবার বিকেলে একই এলাকার প্রভাবশালী তানজিল ও মীর আক্কাস ওরফে মিরম্ন তাদের বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে তানজিলের শ্বশুর বাড়ির সামনে আমগাছের সাথে বেঁধে লাঠি দিয়ে বেধড়ক মারপিট করে। শিশু দুটি মোবাইল চুরির কথা অস্বীকার করলেও তাদেরকে মারপিট করা হয়। পরে শিশু আসিফের পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে দুই হাজার টাকা নিয়ে আসিফকে ছেড়ে দেয় তারা। বেধড়ক মারপিটে কারণে শিশু জুয়েল গুরম্নতর আহত হয়ে পড়লে সন্ধ্যায় তাকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের জরম্নরি বিভাগের দায়িত্বরত চিকিৎসক মেডিকেল অফিসার হুসাইন মহম্মদ শিহাব জানান, শিশুটির শরীরের কয়েকটি স’ানে চাপা রক্ত জমাট বাধার চিহৃ রয়েছে।
চাপড়া ১ নং ওয়ার্ডের সদস্য নুর মহম্মদ জানান, নির্যাতনের ভিডিওটি বুধবার রাতেই দেখেছি। এ ব্যাপারে নির্যাতিত ওই শিশুর পরিবারকে আইনের আশ্রয় নেওয়ার কথা বলা হয়েছে। কুমারখালী থানা পুলিশ এ ঘটনার অন্যতম হোতা ছেঁউড়িয়ার চর মন্ডলপাড়ার তানজিল ও তার শ্বাশুড়ী রোকেয়া খাতুনকে বুধবার রাতেই গ্রেফতার করতে সড়্গম হয়েছে। তবে এ ঘটনার অপর হোতা মীর আক্কাস ওরফে মিরম্নকে পুলিশ এখনো গ্রেফতার করতে পারিনি। নির্যাতিত শিশু জুয়েল চর মন্ডলপাড়া গ্রামের সিরাজুলের ছেলে এবং আসিফ একই এলাকার নিশানের ছেলে। এ ব্যাপারে কুমারখালী থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল খালেক জানান, নির্যাতিত শিশুটির পরিবার মামলা করতে চাননি। আমরা তাদেরকে থানায় ডেকে নিয়ে এসে পাশে দাঁড়িয়ে মামলা করিয়েছি। নির্যাতিত শিশু জুয়েলের বড় ভাই রবজেল খান বাদী হয়ে কুমারখালী থানায় এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার তানজিল, শ্বাশুড়ী রোকেয়া খাতুন ও মীর আক্কাস ওরফে মিরম্নকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেছেন। মামলা নং-৯। ধারা-৩৪২/৩২৩/৩২৫/৩০৭/৫০৬/৩৪। এলাকাবাসী এঘটনার সাথে জড়িতদের দৃষ্টানত্মমূলক শাসিত্মর দাবী করেছেন।

 

Check Also

সুন্দরবনের দুবলার চরে শুঁটকি

সুন্দরবনের দুবলার চরে শুঁটকি উৎপাদনে ধুম, কর্মব্যস্ত জেলেরা

ছবি: বি এম রাকিব হাসান, খুলনা বি এম রাকিব হাসান, খুলনা:  সূর্য ওঠার আগেই জেলেরা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *