Sunday , January 24 2021
Breaking News
Home / খবর / রাজধানীর উত্তরায় হোটেলে আগুন অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা দুর্বল: ফায়ার সার্ভিস

রাজধানীর উত্তরায় হোটেলে আগুন অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা দুর্বল: ফায়ার সার্ভিস

agun

রাজধানীর উত্তরায় আগুন লাগা ‘সি সেল’ আবাসিক হোটেলের ৩০২ নম্বর কক্ষ থেকে দুজনের অগ্নিদগ্ধ লাশ উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিস। তবে তাদের পরিচয় জানা যায়নি। ফায়ার সার্ভিস বলছে, সি শেল হোটেলের অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা দুর্বল ছিল। দুই মাস আগে তাঁদের নোটিশও দেওয়া হয়।

আজ সোমবার ভোর পাঁচটার দিকে উত্তরার চার নম্বর সেক্টরে সি শেল রেস্তোরাঁয় আগুন লাগে। ছয়তলা ভবনের নিচতলায় রেস্তোরাঁটি অবস্থিত। পরে আগুন পাশের ভবনেও ছড়িয়ে পড়ে। ওই ভবনে সি শেলের আবাসিক হোটেল। চার ঘণ্টা পর সকাল নয়টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।

সি শেল রেস্তোরাঁয় গ্যাসপাইপ লাইন থেকে আগুন লাগতে পারে বলে ধারণা করছে ফায়ার সার্ভিস।

উত্তরা ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের দায়িত্বরত কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম জানান, সি শেল হোটেলের অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা দুর্বল ছিল। ফায়ার সার্ভিস দুই মাস আগে হোটেল কর্তৃপক্ষকে নোটিশ দেয়। তিনি বলেন, ‘আমরা বলেছি অগ্নিনির্বাপণের নিজস্ব ব্যবস্থা রাখতে। হোটেল কর্তৃপক্ষ তা করেনি। নোটিশের জবাবও দেয়নি।’

agun3

সি শেল হোটেলের পাশের বাসিন্দা মো. তসিকুল বলেন, প্রধান সড়কের পাশে এই হোটেল। সিটি করপোরেশন সব ভবনে নিজস্ব গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা রাখার কথা বলে। কিন্তু সি শেল হোটেল ও আশপাশের ভবনের কর্তৃপক্ষ তা মানেনি।

ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা গেছে, সি শেল আবাসিক হোটেলের নিচে পার্কিংয়ের কোনো ব্যবস্থা নেই।

ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম আরও জানান, একটি ভবনের সঙ্গে দুই থেকে তিনটি ভবন সংযুক্ত। এ কারণে আগুন পাশের ভবনেও ছড়িয়ে পড়ে। ভোর পাঁচটার দিকে তাঁরা আগুন লাগার খবর পান। পরে ১৪টি ইউনিট ঘটনাস্থলে যায়।

হোটেলের ব্যবস্থাপক মো. সোহেল বলেন, ফায়ার সার্ভিসের নোটিশ আমরা পাইনি। তবে আমরা প্রতিটি কক্ষে অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা রেখেছিলাম। তিনি অভিযোগ করেন, ফায়ার সার্ভিস দেরিতে এসেছে। এ কারণে আগুন দ্রুত ছড়িয়েছে। যে কয়টা ইউনিট এসেছিল তাতে পানি কম ছিল বলেও তিনি জানান।

agun1

গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা রেখেছেন কি না জানতে চাইলে মো. সোহেল বলেন, আবাসিক হোটেলের নিচে অল্প জায়গা আছে। সিটি করপোরেশনের নিয়ম অনুযায়ী পার্কিংয়ের জায়গা রাখা হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন। ভবনটি রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) অনুমোদিত বলেও দাবি করেন সোহেল।

সকালে ফায়ার সার্ভিসের পরিচালক (অপারেশন) মেজর শাকিল নেওয়াজ জানান, অগ্নিকাণ্ডে সি শেল রেস্তোরাঁ, পাশের একুশে রেস্তোরাঁ ও পার্টি সেন্টার বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সি শেলের নিচতলা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ওই রেস্তোরাঁয় অতিরিক্ত ডেকোরেশন ও ফলস সিলিং থাকায় ক্ষয়ক্ষতি বেশি হয়েছে। তিনি আরও জানান, নিহতদের মধ্যে একজন নারী ও একজন পুরুষ। তাদের পরিচয় কেউ জানাতে পারেনি। দুজনের লাশ ঢাকা মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

Check Also

খুলনাঞ্চলে শীতের সঙ্গে বাড়ছে শিশু রোগীর সংখ্যা

খুলনাঞ্চলে শীতের সঙ্গে বাড়ছে শিশু রোগীর সংখ্যা

ছবি :বি এম রাকিব হাসান   বি এম রাকিব হাসান, খুলনা:  মাঘের শুরু থেকেই কমতে শুরম্ন করেছে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *